শুভেন্দু ভট্টাচার্য, কোচবিহার: রাজবংশী ভাষার অভিধান রচনার কাজ শুরু হল৷ এই কাজের প্রধান উদ্যোক্তা রাজবংশী ভাষা অ্যকাডেমি৷

শনিবার এই উপলক্ষে কোচবিহারে অ্যাকাডেমির সভাকক্ষে তিন দিনের কর্মশালার আয়োজন করা করা হয়। অংশগ্রহণ করেছেন রাজবংশী ভাষা অ্যাকাডেমির সদস্যদের পাশাপাশি এই ভাষার গবেষকরা।

Advertisement

আরও পড়ুন: অধীরের দলের শাওনীকে তৃণমূলে আনলেন শুভেন্দু

এদিন এই কর্মশালার সূচনা করেন উত্তরবঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ৷ এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন রাজবংশী ভাষা অ্যাকাডেমির সভাপতি তথা জলপাইগুড়ির সাংসদ বিজয়চন্দ্র বর্মন, কলকাতা সংস্কৃত মহাবিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক কিশোর কুমার রাঢ়ি, অসমের গোলকগঞ্জ কলেজের অধ্যাপক ড. দ্বীজেন্দ্রনাথ ভকত, মেঘালয়ের তুরা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক অলোক সাহা, রায়গঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক দীপককুমার রায় প্রমুখ।

২০১২ সালে মুখ্যমন্ত্রীর উদ্যোগে কোচবিহার শহরের ভিক্টর প্যালেসে রাজবংশী ভাষা অ্যাকাডেমির কাজ শুরু হয়। বর্তমানে এই অ্যাকাডেমির রাজবংশী ভাষার উপর বিভিন্ন আলোচনা ও বই প্রকাশের মাধ্যমে তাঁদের কাজকর্ম পরিচালনা করছেন। বর্তমানে এই ভাষাকে রাজ্য সরকার স্বীকৃতি দিয়েছে। এবার এই ভাষার অভিধান রচনার কাজ শুরু হল।

আরও পড়ুন: ভুল বুঝিয়ে রোগীকে নিয়ে গেলেই ১২ হাজার কমিশন দেয় নার্সিংহোম

এদিন বিজয়চন্দ্র বর্মন জানিয়েছেন, এটা প্রথম কর্মশালা৷ এরপর আরও কয়েকবার এই কর্মশালা আয়োজিত হবে। প্রাথমিকভাবে ১০ হাজার শব্দ নিয়ে এই অভিধান তৈরি হবে৷ যেহেতু এটা সময় সাপেক্ষ তাই স্বাভাবিকভাবে অভিধান প্রকাশ করতে বেশ কিছুটা সময় লাগবে।

এদিন উত্তরবঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ জানিয়েছেন, রাজ্য সরকার বিভিন্ন ভাষার উন্নয়নের কাজ করছে৷ দীর্ঘ দিনের দাবি মেনে রাজবংশী ভাষাকে স্বীকৃতি দিয়েছেন৷ এবার এই ভাষার অভিধান তৈরি হলে এই ভাষার প্রসার ঘটবে৷

আরও পড়ুন: কানে হেডফোন, চলন্ত ট্রেন থেকে পড়ে গেলেন যাত্রী

----
--