খোদ আইন রক্ষকের বাড়িতে হানা চোরেদের

স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: পুলিশের স্ত্রীকে বন্দুকের বাট দিয়ে মাথায় আঘাত করে সর্বস্ব লুট করে নিয়ে গেল দুষ্কৃতীরা৷ ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগণার খড়দহর শান্তিনগরে৷ কলকাতা পুলিশের এক পদস্থ অফিসারের বাড়িতে ভয়াবহ ডাকাতির ঘটনায় ওই এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়াল। চুরির পরিমাণ প্রায় তিন লক্ষ টাকা। ওই পুলিশ কর্মীর নাম দেবাশিষ মুখোপাধ্যায়৷

জানা গিয়েছে, ঘটনার সময় দেবাশিষ বাবু বাড়িতে ছিলেন না৷ তখন তিনি কলকাতা থেকে ট্রেনে বাড়ি ফিরছিলেন৷ তাঁর ছোট ছেলে ও শাশুড়ি দোতলার ঘরে ছিল৷ আর বড় ছেলে বাড়ির বাইরে ছিল। ঘটনার দিন ওই কর্মীর বাড়িতে পিছনের দরজা দিয়ে দুই ব্যাক্তি আসে৷ তাঁর স্ত্রী কবিতা মুখোপাধ্যায়কে জিজ্ঞাসা করেন দেবাশিষ বাবু বাড়ি আছেন কিনা৷ কবিতা দেবী তাঁদের জানায় তাঁর স্বামী এখন বাড়িতে নেই৷

তিনি তাঁদের জানায় তারা যেন ঘণ্টা দুয়েক পরে আসেন৷ কথা না বাড়িয়ে তারা চলে যান। এরপরই তিনি নিজের ঘরে অন্যান্য দিনের মতই কাজকর্ম করছিলেন। তখন ওই পুলিশ কর্মীর বাড়িতে সামনের দরজা দিয়ে এক যুবক ও এক যুবতী ঘরে ঢুকে পড়ে৷ কবিতা দেবীকে প্রথমে চর থাপ্পড় মেরে বন্দুক কপালে ঠেকিয়ে ঘরের ভিতরে নিয়ে যায়।

- Advertisement -

ওই যুবতী ঘরে রাখা বটি দিয়ে কবিতা দেবীর শরীরে আঘাত করতে শুরু করে। বন্দুকের বাট দিয়ে তাঁর মাথায় আঘাত করে৷ এক দুষ্কৃতী গৃহকর্ত্রীর মাথায় বন্দুক ধরে আলমারি খুলিয়ে লুট করে অন্তত পাঁচ ভরি সোনার গহনা ও নগদ ৮০ হাজার টাকা। লুঠের পর ওই দুষ্কৃতীরা মুখোপাধ্যায় বাড়ি ছেড়ে চম্পট দেয়।
কবিতা দেবী বলেন, ‘ওরা অনেকেই ছিল দলে৷ আগে দুজন যুবক এসেছিল খোঁজ নিতে৷ পরে এক যুবক ও যুবতী ঘরে ঢুকে আমাকে খুনের হুমকি দিয়ে লুঠপাট চালালও। এরপর ওরা পালিয়ে যায়। ওই যুবতী আমাকে মারধরও করেছে। ওরা সোনার গহনা আর নগদ টাকাই নিয়েছে।’

খড়দহ থানার পুলিশ গোটা ঘটনার তদন্তে নেমেছে৷ তবে এখনও কোন সূত্র পায়নি। পুলিশ জানিয়েছে তদন্ত চলছে৷ দুষ্কৃতীরা নিশ্চয় ধরা পড়বে। দিনে দুপুরে একজন পুলিশ কর্মীর বাড়িতে এই ডাকাতি হওয়ায় এলাকার আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

Advertisement
----
-----