WhatsApp ব্যবহার করেন? তাহলে অবশ্যই পড়ুন

ভুয়ো ম্যাসেজ ছড়িয়ে পড়া রোধে একাধিক পদক্ষেপ নিয়েছে হোয়াটস অ্যাপ৷ কিছুদিন আগেই সংস্থা নিয়ে এসেছে‘forwarded’অপশনটিকে৷ অন্যদিকে, সরকারের কড়া নির্দেশিকাও চাপে ফেলেছে জনপ্রিয় ম্যাসেজিং অ্যাপটিকে৷ যার জেরেই সংস্থা প্রতিনিয়ত মাধ্যমটিকে আপডেট করে চলেছে৷ সম্প্রতি, ‘ফেক ম্যাসেজ’এর বিষয়টি সামনে এসেছে৷ সেখান থেকেই উঠে এসেছে আরও একটি প্রসঙ্গ৷

ম্যাসেজ হ্যাকের বিষয়টি৷ গবেষণার তথ্য অনুসারে, হোয়াটস অ্যাপে ত্রুটির কারণেই হ্যাকারদের হাতে পৌঁছতে পারে ইউজারদের গোপন তথ্য৷ যেগুলিকে ভুলভাবে ব্যবহারও করার বিষয়টি খুবই প্রাসঙ্গিক৷ সেখান থেকেই বলা যায়, হ্যাকররা হোয়াটস অ্যাপ ম্যাসেজগুলিকে ভুলভাবে প্রদর্শিত করতে পারে৷ গবেষকরা জানাচ্ছেন, হোয়াটস অ্যাপের ত্রুটির কারণে তিন ধরণের সমস্যার সম্মুখীন হতে পারেন ইউজাররা৷

১) হ্যাকাররা সংগৃহীত ম্যাসেজগুলির উত্তরকে ভুলভাবে পাঠাতে পারেন৷ ব্লগের তথ্য জানাচ্ছে, ইউজারদের না বলা উক্তিও খুব সহজেই ম্যাসেজের মাধ্যমে পাঠানো সম্ভব হবে৷

- Advertisement -

২) হোয়াটস অ্যাপ গ্রুপে কথোপকথন চলাকালীন অনুপস্থিত ব্যাক্তির হয়েও উত্তর পাঠাতে সক্ষম হ্যাকাররা৷ যা অবশ্যই একটি চিন্তার বিষয়৷ কারণ, গ্রুপ থেকে বহিষ্কৃত বা গ্রুপের সদস্য নন, এমন ব্যাক্তিদের হয়েও রিপ্লাই করতে পারবেন এই মুখোশধারীরা৷

৩) এখানে হ্যাকাররা গ্রুপ কথোপকথনের অংশ হিসেবে ইউজারকে কোন ম্যাসেজ করতে পারবেন৷ যদিও, সেটা আসলে একটি ব্যাক্তিগত কথোপকথনের অংশ৷

পুরো বিষয়টি সর্ম্পকে অবগত হোয়াটস অ্যাপ কর্তৃপক্ষ৷ কিন্তু, সংস্থা এখনও পর্যন্ত বিষয়টি নিয়ে কোনরকম উদ্যোগ গ্রহণ করেনি৷ অন্যদিকে, কিছুদিন আগে আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নিয়েছিল হোয়াটস অ্যাপ৷ “Digital Literacy”,যেখানে ফেক নিউস নিয়ে সচেতন করা হয়েছিল ইউজারদের৷

Advertisement ---
-----