বিশ্বজিৎ ঘোষ, কলকাতা: অধিকার আদায়ের জন্য লড়াইয়ের অভিনব পথ৷ আর, এই পথেই এ বার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কাছে পৌঁছতে চলেছে হাজার হাজার পোস্ট কার্ড৷

‘দ্য ট্রান্সজেন্ডার পার্সনস (প্রোটেকশন অফ রাইটস) বিল, ২০১৬’৷ এই বিলের বিরুদ্ধেই প্রধানমন্ত্রীর কাছে পোস্ট কার্ডের মাধ্যমে এ বার প্রতিবাদ জানাতে চলেছেন পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন প্রান্তের হাজার হাজার সমকামী, উভগামী এবং ট্রান্সজেন্ডার অর্থাৎ, এলজিবিটি (লেসবিয়ান, গে, বাইসেক্সুয়াল, ট্রান্সজেন্ডার) মানুষ৷ ওই সব পোস্ট কার্ডে একই সঙ্গে তাঁদের দাবিও প্রধানমন্ত্রীর কাছে পেশ করা হতে চলেছে বলে জানানো হয়েছে৷

এই বিল প্রত্যাহার অথবা সংশোধন চাইছেন বাংলার ওই সব সমকামী, উভগামী এবং ট্রান্সজেন্ডার মানুষ৷ এই বিষয়ে www.kolkata24x7.com-কে এলজিবিটি আন্দোলনের কর্মী সৌভিক বলেছেন, ‘‘প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানোর জন্য এই সব পোস্ট কার্ড সংগ্রহ করা হচ্ছে৷ আমরা চাইছি, ‘দ্য ট্রান্সজেন্ডার পার্সনস (প্রোটেকশন অফ রাইটস) বিল, ২০১৬’ প্রত্যাহার করা হোক৷ প্রত্যাহার করা না হলেও এই বিলে সংশোধন আনা হোক৷’’ কেন? তিনি বলেন, ‘‘একজন নাগরিক হিসাবে একজন ট্রান্সজেন্ডারের সমান অধিকারের ক্ষেত্রে এই বিলে বৈষম্য রয়েছে৷’’

আরও পড়ুন: কন্ডোম ‘ব্যর্থ’, এইডস প্রতিরোধে পিল ব্যবহার করছেন বাংলার যৌনকর্মীরা

একই সঙ্গে সৌভিক বলেন, ‘‘সুপ্রিম কোর্টের নালসা রায়ে বলা হয়েছে, দেশের প্রতিটি নাগরিক নিজের লিঙ্গ অর্থাৎ, জেন্ডার তিনি নিজেই নির্ধারণ করতে পারবেন৷ একজন নাগরিক হিসাবে একজন ট্রান্সজেন্ডার মানুষেরও ব্যক্তিগত জীবনের গোপনীয়তা রক্ষার অধিকার আছে৷ অথচ, একজন ট্রান্সজেন্ডার মানুষকে চিহ্নিত করার জন্য এই বিলে মেডিক্যাল টেস্টের কথা বলা হয়েছে৷’’ এই মেডিক্যাল টেস্টের সময় কোনও ট্রান্সজেন্ডার মানুষ যে হেনস্তার শিকার হবেন না, সেই বিষয়ে তাঁদের আশঙ্কা রয়েছে বলেও জানানো হয়েছে৷

শুধুমাত্র তাই নয়৷ এলজিবিটি আন্দোলনের এই কর্মী বলেন, ‘‘এই বিলে একজন ট্রান্সজেন্ডারের যে সংজ্ঞা দেওয়া হয়েছে, তা অদ্ভুত৷ শিক্ষা, স্বাস্থ্য সহ বিভিন্ন বিষয়ে আত্মমর্যাদা, সমান অধিকারের ক্ষেত্রে এই বিলে বৈষম্য রয়েছে৷’’ তাঁর প্রশ্ন, ‘‘এই বিলে একজন ট্রান্সজেন্ডারের ভিক্ষাবৃত্তিকে অপরাধ হিসাবে গণ্য করা হয়েছে৷ অথচ, শিক্ষা এবং কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে সংরক্ষণের বিষয়টি প্রশ্নের মুখে৷ তার মানে কি শিক্ষার বিষয়ে অনুৎসাহ?’’ ১০ ডিসেম্বর, আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবসে, এ বারের কলকাতা রেনবো প্রাইড ওয়াকেও এই বিলের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছেন অসংখ্য এলজিবিটি মানুষ৷ এই বিলের বিরুদ্ধে সমাজের বিভিন্ন অংশের সংবেদনশীল বহু মানুষও সোচ্চার হচ্ছেন৷

আরও পড়ুন: ‘লাভ জিহাদে’র আবহে রাজপথে অধিকার চাইলেন ট্রান্সজেন্ডার-সমকামীরা

কলকাতা রেনবো প্রাইড ওয়াকের তরফে এমনই জানানো হয়েছে, এই বিলের জন্য যেমন ট্রান্সজেন্ডার গোষ্ঠীদের দেওয়া কোনও পরামর্শ গ্রাহ্য করা হয়নি৷ তেমনই, সুপ্রিম কোর্টের নালসা রায়কেও লঙ্ঘন করা হয়েছে৷ জানানো হয়েছে, এই বিল প্রত্যাহার অথবা, সংশোধন করে এমন রূপ দেওয়া হোক, যেটি নালসা রায়কে মান্যতা দিয়ে ট্রান্সজেন্ডার এবং প্রান্তিক লিঙ্গের মানুষের প্রয়োজন বুঝে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে পারবে৷ আর, এই ধরনের পরিস্থিতির মধ্যেই, এই বিলের বিরুদ্ধে এ বার প্রধানমন্ত্রীর কাছে পৌঁছচ্ছে হাজার হাজার পোস্ট কার্ড৷ এবং, এই পোস্ট কার্ডের সংখ্যা কয়েক হাজার হবে বলেই জানানো হয়েছে৷

----
--