সরকারের নির্দেশে চিনে ভাঙা পড়ছে মসজিদ

ফাইল ছবি।

বেজিং:  ভেঙে ফেলা হচ্ছে মসজিদ। চিনের নিংশিয়া এলাকার একটি মসজিদ ভেঙে ফেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। আর তা নিয়েই ক্ষোভ ছড়িয়েছে মুসলিম মানুষদের মধ্যে। শুধু ক্ষোভ তৈরি হওয়াই নয়। ক্রমশ তা ছড়িয়ে পড়ছে বলে জানা গিয়েছে। আর সেই ক্ষোভ থেকেই উইঝু শহরের ওই মসজিদ প্রাঙ্গণে জড়ো হন কয়েক হাজার মুসলিম সম্প্রদায় মানুষ। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত প্রশাসনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখান তারা। এমনকি জিংপিং সরকারকে হুঁশিয়ারি, মসজিদে কোনওভাবেই হাত লাগাতে দেওয়া হবে না।

যদিও স্থানীয় প্রশাসনের দাবি, ওই জায়গাতে ওই মসজিদ তৈরির কোনও অনুমোদন নেওয়া হয়নি। সম্পূর্ণ তা বেআইনি ভাবে তৈরি করেছে বলে দাবি তাদের। আর সে কারণেই তা ভেঙে ফেলার নির্দেশ দেওয়া হয়। যদিও এহেন দাবি মানতে নারাজ স্থানীয় মানুষজন। তাঁদের পালটা দাবি, যদি অনুমোদনই না থাকে তাহলে কেন আগে ভেঙে দেওয়া হয়নি। প্রসঙ্গত, গত কয়েক বছর ধরে এটি তৈরির কাজ চলছিল। কিন্তু এই সমস্ত প্রশ্ন, বিক্ষোভের মুখেও সরকার নিজ অবস্থানে অটল রয়েছে। স্থানীয় এক মানুষ জানিয়েছেন, “জনতা সরকারকে মসজিদে হাত লাগাতে দেবে না। কিন্তু সরকারও সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসছে না। ফলে আমরা অচলাবস্থায় পড়েছি।”

চিনে মুসলিম সংখ্যালঘু আছে ২ কোটি ৩০ লাখ। নিংশিয়া বহুদিন থেকেই মুসলিম অধুষ্যিত অঞ্চল। কিন্তু গত কয়েক বছর ধরে মুসলিমদের উপর নানারকম নিষেধাজ্ঞা চাপিয়েছে সে দেশের সরকার। জানা গিয়েছে, উইঝু শহরের শাহী মসজিদটি মধ্যপ্রাচ্যের মসজিদের ধাঁচে নির্মাণ করা হয়েছে। মসজিদটিতে একাধিক মিনার ও গম্বুজ আছে। কিন্তু চিনে কয়েক শতক ধরে সবসময় চিনা ধাঁচেই মসজিদ নির্মাণ হয়ে আসছে। সে কারণে নতুন কাঠামোর ওই মসজিদকে চিনে আরব আধিপত্য বিস্তারের দৃষ্টান্ত হিসাবেই দেখছে সরকার। আর তাই কর্তৃপক্ষ চাইছে মসজিদের গম্বুজগুলো ভেঙে চিনের প্যাগোডা ছাঁচে সেগুলো নির্মাণ করতে। কর্তৃপক্ষ আটটি গম্বুজ সরিয়ে ফেলতে চায় বলে জানানো হয়েছে কয়েকটি প্রতিবেদনে। কিন্তু এই প্রস্তাব মুসলিম সম্প্রদায় মানবে না বলেই জানিয়েছেন এক বিক্ষোভকারী।

Advertisement
---