নারী পাচারকারী সন্দেহে তিনজনকে গণপিটুনি

স্টাফ রিপোর্টার, বর্ধমান: নারী পাচারে জড়িত থাকার অভিযোগে শুক্রবার বিকেলে তিনজনকে ধরে বেধড়ক মারধর করার অভিযোগ উঠল৷ ঘটনাটি ঘটেছে বর্ধমানের বিজয়রাম এলাকায়৷

সেখানকার বাসিন্দারা ওই তিনজনকে মারধর করে বলে অভিযোগ৷ পরে অবশ্য ওই তিনজনকে পুলিশের হাতে তুলে দেন স্থানীয়রা৷

আরও পড়ুন: কোষাগার-কাণ্ডে রাজসাক্ষী পেয়ে স্বস্তিতে পুলিশ

ওই এলাকার বাসিন্দাদের অভিযোগ, প্রায় ৩ মাস আগে বিজয়রামের এক গৃহবধূ আচমকাই নিখোঁজ হয়ে যান। অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তার কোনও হদিশ মেলেনি। এরপর সম্প্রতি ওই গৃহবধূ তাঁর স্বামীকে ফোনে জানান, তাঁকে বিহারে একটি নাচের গ্রুপে জোর করে আটকে রাখা হয়েছে। তার উপর অত্যাচার চালানো হচ্ছে। কোনওভাবেই তাকে বের হতে দেওয়া হচ্ছে না।

আরও পড়ুন: ফের মৃত্যু! শোকের ছায়া টলিপাড়ায়

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, এরপরই ওই মহিলার স্বামী ফোনে যোগাযোগ করেন নারী পাচার চক্রের সঙ্গে। কমিশনের বিনিময়ে তিনি আরও কয়েকটি মেয়েকে পাঠাবেন বলে টোপ দেন। আর তার পরিপ্রেক্ষিতেই বিহারের ছাপড়ার বাসিন্দা রাজীব সিং এক ভাগনেকে সঙ্গে নিয়ে আসেন নৈহাটির মোমিন পাড়ায় তার শ্বশুরবাড়িতে। এরপর রাজীব সিং যোগাযোগ করেন নৈহাটির মেঘনামোড়ের বাসিন্দা মন্টু আনসারির সঙ্গে।

আরও পড়ুন: গল্প বাদ দিয়ে ‘ধড়ক’-এ আছে…

আরও পড়ুন: শনির রাশিচক্রে কী আছে আপনার ভাগ্যে?

এদিকে পরিকল্পনামাফিক ওই গৃহবধূর স্বামী নৈহাটিতে গিয়ে ওই তিনজনকে সঙ্গে নিয়ে বিজয়রামে ফিরে আসেন। আর তারপরেই ওই গৃহবধূর হদিশ পেতে তাদের তাদের আটকে রেখে চলে জিজ্ঞাসাবাদ। বেধড়ক মারধরও করা হয় তাদের। পরে বর্ধমান থানার পুলিশের হাতে তাদের তুলে দেওয়া হয়। যদিও ধৃতরা জানিয়েছেন, তাঁরা এই ধরনের ঘটনার সঙ্গে কোনওভাবেই যুক্ত নন।

আরও পড়ুন: জেনে বুঝে বিষপান করে মুখ পুড়ল রাহুলের

আরও পড়ুন: ‘একজনের খুব তাড়া প্রধানমন্ত্রীর চেয়ারে বসার’, রাহুলকে মোদী

পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে৷ ওই তিনজনকে আটক করা হয়েছে৷ তারা নারী পাচারে যুক্ত রয়েছে কি না, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে৷

আরও পড়ুন: ছাত্রকে মারধরের অভিযোগ উঠল ভাইস প্রিন্সিপালের বিরুদ্ধে

আরও পড়ুন: ভুয়ো সরকারি ওয়েবসাইট তৈরি করে প্রতারণার অভিযোগ

----
-----