কেরলের পথে তিনটি বিশেষ ট্রেন, প্রথমটির যাত্রা মঙ্গলবার

হাওড়া: বহু বিপদের অলি গলি ঘুরে অবশেষে ঘরে ফিরছেন কেরলে আটকে থাকা এ রাজ্যের বাঙালিরা৷ কেউ বা ঘুরতে গিয়েছিলেন৷ কেউ আবার কাজের সূত্রে কেরলে৷ সোমবার সকালে ডাউন চেন্নাই-সাঁতরাগাছি এসি এক্সপ্রেস সাঁতরাগাছি স্টেশনে এসে পৌঁছয়।

তবে এই ট্রেনে বন্যায় আটকে পড়া যাত্রী তেমন নজরে পড়েনি৷ কিন্তু দুপুরে হাওড়া করমণ্ডল এক্সপ্রেসে জনাকয়েক বন্যায় আটক যাত্রী ফিরেছেন৷ ফিরেই বীভৎস অভিজ্ঞতার কথা শুনিয়েছেন আতঙ্কিত কন্ঠে৷ প্রত্যেকেরই চোখে মুখে এখনও উৎকন্ঠার ছাপ৷

আরও পড়ুন: কেরালায় মানবিকতার গল্প বুনছে মৎস্যজীবীরাও

- Advertisement -

এদের সকলেরই বক্তব্য, সেখানে ভয়াবহ পরিস্থিতি। পানীয় জল নেই। খাবার নেই। যোগাযোগ ব্যবস্থা বিপর্যস্ত। কোনওমতে তাঁরা চেন্নাইতে চলে আসেন এবং সেখান থেকে করমণ্ডল এক্সপ্রেসে হাওড়ায় ফেরেন। এক যাত্রী জানালেন, বাড়িঘর সবই জলে জলাকার৷ রাস্তাঘাটও জলের তলায়। নেই খাবার৷ বিদ্যুৎ থেকে টেলিযোগাযোগ সব বিচ্ছিন্ন। কেরালায় তিনি কাজ করতেন। কিন্তু এরকম অভিজ্ঞতার সম্মুখীন কোনওদিন হননি৷

এদিকে বন্যা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে দক্ষিণ-পূর্ব রেলের তরফ থেকে তিনটি স্পেশাল ট্রেন ছাড়ার পরিকল্পনা করা হচ্ছে৷ একটি তিরুবনন্তপুরমগামী বিশেষ ট্রেন শালিমার থেকে রওনা হবে মঙ্গলবার রাতে৷ ওই ট্রেন পৌঁছবে বৃহস্পতিবার। একটি সাঁতরাগাছি থেকে এরনাকুলাম রওনা হবে বুধবার বিকেলে।

আরও পড়ুন: বকরিদে রোহিঙ্গাদের জন্য বিশেষ উপহার প্রধানমন্ত্রীর

সেই ট্রেন এরনাকুলাম পৌঁছবে শুক্রবার বিকেল চারটে নাগাদ৷ এবং ওইদিনই সন্ধ্যা সাতটায় সাঁতরাগাছি থেকে আরও একটি ট্রেন রওনা হবে এবং সেটি এরনাকুলাম পৌঁছবে শুক্রবার রাত সাড়ে আটটায়। সবকটি বিশেষ ট্রেনেই একটি এসি টু টিয়ার, এসি থ্রি টিয়ার, ১১টি স্লিপার ক্লাস এবং দু’টি জেনারেল সেকেন্ড ক্লাস কোচ রাখা হচ্ছে বলে দক্ষিণ পূর্ব রেল সূত্রে জানানো হয়েছে।

Advertisement ---
---
-----