৩৫০ কিমি পথ হেঁটেও থামতে নারাজ রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার

নাগপুর: খাবার আর উপযুক্ত বাসস্থানের খোঁজে সাড়ে তিনশো কিলোমিটার হেঁটে ফেলল এক রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার৷ মহারাষ্ট্র থেকে পৌঁছে গেল মধ্যপ্রদেশ৷ তাও আবার সবচেয়ে কম সময়ে৷

যাকে একটা রের্কড বলা হচ্ছে৷ কারণ, এর আগে বাসস্থানের সন্ধানে কর্ণাটক থেকে একটি বাঘ ২৮০ কিমি পথ অতিক্রম করেছিল৷ কিন্তু তা পেরোতে ওই বাঘ সময় নিয়েছিল প্রায় ১৫ মাস৷ আর এই রয়্যাল বেঙ্গলটি মাত্র দেড় মাসেই সাড়ে তিনশো কিমি পথ পার করে ফেলেছে৷

- Advertisement -

আরও পড়ুন: নতুন সভাপতির নাম ঘোষণা করল মোহনবাগান

ফলে এই খবর সামনে আসতেই হইচই পড়ে গিয়েছে দেশের বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞদের মধ্যে৷ সকলেই এই সফরের খুঁটিনাটি তথ্য জানতে উৎসুক৷

বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞদের দাবি, পূর্ণবয়স্ক পুরুষ এই বাঘটি ছিল মহারাষ্ট্রে৷ সেখানকার চন্দ্রপুর সুপার থার্মাল পাওয়ার স্টেশনের আশপাশের জঙ্গলেই থাকত৷ সেখান থেকে সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময় যাত্রা শুরু করে সে৷

আরও পড়ুন: কেন্দ্রের সঙ্গে সংঘাত! পদত্যাগ করতে পারেন RBI গভর্ণর উর্জিত প্যাটেল

বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞদের দাবি, মূলত খাবার ও বাসস্থানের খোঁজে বাঘটি হাঁটতে শুরু করে৷ কখনও জঙ্গলের পথ ধরে সে এগিয়েছে৷ কখনও এসে পড়েছে লোকালয়ে৷ কখনও আবার অমরাবতী-নাগপুর ৬ নম্বর জাতীয় সড়কে দেখা গিয়েছে ওই বাঘটিকে৷ আবার কখনও গ্রামের পথ, চাষের ক্ষেত ধরে এগিয়েছে সে৷ মোরশিতে ওয়ার্ধা ড্যাম পেরিয়ে সোমবার সন্ধ্যায় বাঘটি পৌঁছায় মধ্যপ্রদেশের বেতুল জেলায়৷ সোমবার ওই বাঘটি দেখা গিয়েছে মেলঘাট ব্যাঘ্র প্রকল্পের পালাসপানি এলাকায়৷

আরও পড়ুন: ইসলাম অবমাননাকারী আসিয়া বিবিকে মুক্তি দিল আদালত

তবে বনকর্মীরা এই ‘যাযাবর’ বাঘটিকে বহু চেষ্টা করেছে গত দেড় মাসে৷ কিন্তু প্রতিবারই তাদের ব্যর্থ হতে হয়েছে৷ এরই মধ্যে একাধিক গবাদি পশুর মৃত্যু হয়েছে ওই বাঘের আক্রমণে৷ মারা গিয়েছেন দু’জন মানুষও৷

বনকর্মীদের দাবি, দু’টি ঘটনাই ঘটেছে মহারাষ্ট্রে৷ প্রথমটি হয় চলতি মাসের ১৯ তারিখ৷ সেদিন মহারাষ্ট্রের মংরুল দাস্তগির এলাকায় রাজেন্দ্র নিমকুর (৪৮) নামে এক কৃষকের মৃত্যু হয় বাঘের আক্রমণে৷

আরও পড়ুন: পুলিশের চাকরি পেতে চুলে ‘হেনা’ লাগিয়ে শ্রীঘরে যুবক

এই ঘটনার দিন তিনেক পরই মোরশ্বর ওয়ালকে (৫০) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয় বাঘের আক্রমণে৷ ঘটনাস্থল অঞ্জনসিঙি এলাকা৷ প্রথম ঘটনাস্থল থেকে এই এলাকার দূরত্ব ১৬ কিমি৷

এই দু’টি মৃত্যুর পর থেকেই নড়চড়ে বসে প্রশাসন৷ বাঘটিকে ধরার অভিযান আরও জোরদার করা হয়৷ মহারাষ্ট্রের মুখ্য বনপাল একে মিশ্র বাঘটিকে ট্র্যাঙ্কুলাইজ করার নির্দেশ দিয়েছেন৷ ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত ওই নির্দেশ কার্যকর থাকবে৷

আরও পড়ুন: বাদ পড়ে হতাশ ধাওয়ান

কিন্তু তাতেও স্বস্তি নেই কেউই৷ কারণ, ওই নির্দেশ শুধুমাত্র মহারাষ্ট্রের জন্য সীমাবদ্ধ৷ আর বাঘটি এখন মধ্যপ্রদেশে৷ ফলে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে সর্বত্র৷ ইতিমধ্যে এক কংগ্রেস বিধায়ক সরাসরি বনমন্ত্রীকে ফোন করেন৷ বাঘটিকে গুলি করে মারার দাবি জানান৷

বন দফতরের বক্তব্য, বারদুয়েক বাঘটিকে ধরার সুযোগ এসেছিল৷ কিন্তু সাধারণ মানুষের মাত্রাছাড়া হইচইয়ের জেরে সেই সুযোগ হাতছাড়া হয়৷ তাই আপাতত সেই সুযোগের অপেক্ষায় বন দফতর৷

আরও পড়ুন: চোর কে? ব্যবসায়ীর বাড়িতে চুরির ঘটনায় সন্দেহ বাড়ির লোককেই

কিন্ত রাজ্যের বন দফতর সেই সুযোগ পাবে, তা নিয়ে প্রশ্ন চিহ্ন রয়েছে৷ কারণ, সাড়ে তিনশো কিমি হেঁটেই এখনও অক্লান্ত ওই রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার৷ সে আরও এগিয়ে গিয়েছে৷ শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ওই বাঘটি মেলঘাট ব্যাঘ্র প্রকল্প থেকে ৫০ কিমি ও সাতপুরা ব্যাঘ্র প্রকল্প থেকে ১০০ কিমি দূরত্বে অবস্থান করছে৷ তাই শেষপর্যন্ত বাঘটি কোথায় গিয়ে থামবে, তা নিয়েই চিন্তিত বন কর্মীরা৷

আরও পড়ুন: পদ থেকে ইস্তফা দিলেন বি-টাউনের ‘অ্যাক্সিডেন্টাল প্রাইম মিনিস্টার’