অমরাবতী: দুর্নীতির বিরুদ্ধে মুখ খোলায় তিরুমালা মন্দিরের প্রধান পুরোহিতের পদ থেকে আগেই বহিস্কার করা হয়েছিল এভি রামানাকে৷ সেই তিনিই এবার রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী চন্দ্রবাবু নাইডুর বিরুদ্ধে মন্দিরের অর্থ নয়ছয় করার অভিযোগ তুললেন৷ জানিয়েছেন, মন্দির প্রশাসনকে কাজে লাগিয়ে ১০০ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷

এই খবর প্রকাশ করা হয়েছে জি নিউজে৷ রিপোর্টে বলা হয়েছে প্রাক্তন প্রধান পুরোহিতের অভিযোগ, মন্দিরের টাকার অপব্যবহার করা হয়েছে৷ স্বয়ং রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীও এই দুর্নীতিতে সামিল৷ তিনি মন্দিরের অর্থ নয়ছয় করেছেন৷ মন্দির প্রশাসনকে হাত করে ১০০ কোটি টাকা সরিয়ে নিয়েছেন৷ এই অর্থ তিনি তাঁর রাজনৈতিক কাজে ব্যবহার করেছেন৷

Advertisement

সেই সঙ্গে তিনি আরও একাধিক গুরুতর অভিযোগ তোলেন৷ জানান, মন্দিরের রান্নাঘরের অবস্থা শোচনীয়৷ এখানে লাখ লাখ ভক্তদের প্রসাদ তৈরি করা হয়৷ সেই ঘরের এখন ভগ্নদশা৷ এছাড়া প্রাচীনকাল থেকে মন্দিরের ধন সম্পত্তি যেগুলি গোপন স্থানে রাখা ছিল তাও গায়েব৷ এর আগে রামানা অভিযোগ করে জানিয়েছিল, মন্দিরে প্রতিদিন যে লক্ষ লক্ষ টাকার দান পড়ে সেসবই ব্যক্তিগত অর্থে ভোগ করছে মন্দির কর্তৃপক্ষ৷ তিরুমালা ট্রাস্টি বোর্ডের যাবতীয় আয় ব্যায়ের হিসেব তিনি প্রকাশ্যে এনেছিলেন, যাতে ধরা পড়ে একাধিক অসঙ্গতি৷ এরপরেই প্রধান পুরোহিতের বিরুদ্ধে ক্ষোভ বাড়ে৷ ফলে সরতে হয় তাঁকে৷

প্রসঙ্গত, তিরুমালা মন্দির বিশ্বের ধনী মন্দিরগুলোর মধ্যে অন্যতম৷ তিরুপতি দেবস্থানম (টিটিডি) নামের কমিটি এই মন্দির পরিচালনা করে। সেই কমিটি জানিয়েছে, বছরে কমপক্ষে ২ কোটি ৬৮ লক্ষ ভক্তের সমাগম ঘটে এই মন্দিরে। তাঁদের দেওয়া নগদ প্রণামীর পরিমাণ ১০৩৮ কোটি টাকা। টিটিডি আগামী ২০১৭-১৮ আর্থিক বছরের জন্য ২৮৫৮ কোটি টাকার বাজেট অনুমোদন করেছিল৷ তবে উপার্জনের আরও অনেক রাস্তা খোলা রয়েছে মন্দির কমিটির সামনে। প্রতি বছর বহু ভক্ত নিজের মাথার চুল উৎসর্গ করেন মন্দিরে। সেই চুল বিক্রি করে কমিটি। লাড্ডু বিক্রি থেকে ১৬৫ কোটি রোজগার হয়৷

----
--