স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: রথযাত্রার পালটা হিসেবে তৃণমূল কংগ্রেস ‘একতা যাত্রা’ করার কথা ঘোষণা করেছে শুক্রবার৷ তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, রথযাত্রার পরের দিন ওই জায়গার রাস্তা বিশুদ্ধ করতেই এই একতা যাত্রার আয়োজন করা হয়েছে৷ মমতার বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বিজেপির জাতীয় সম্পাদক রাহুল সিনহার বক্তব্য, ‘রথযাত্রার পরের দিনই ওই এলাকায় তৃণমূলের ‘শ্মশানযাত্রা’ শুরু হবে৷’

শুক্রবার নেতাজি ইনডোর স্টেডিয়ামে মমতা বলেন, বিজেপি স্ট্যাচু বানিয়েছে৷ কিন্তু একদিন স্ট্যাচু হয়ে যাবে৷ রাহুলের বক্তব্য, তৃণমূলের এই রাজ্যে বিজেপি তৃণমূলের শহীদ বেদি বানাবে৷ রাজ্যে বিজেপি ক্ষমতায় এলেই শহীদ বেদি প্রস্তুত হয়ে যাবে৷

আরও পড়ুন: কংগ্রেস ও বিজেপিকে সাপের সঙ্গে তুলনা মায়াবতীর

তবে তৃণমূল-বিজেপির তপ্ত বাক্য বিনিময়ের শেষ এখানেই হয়নি৷ শুক্রবার সন্ধ্যায় সল্টলেকের সবলা মেলায় রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় (বালু) মল্লিক বলেন, বিজেপির রথের রাস্তা আমরা গঙ্গাজল দিয়ে ধুয়ে দেব৷ শুনেছেন তো শুক্রবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কী বলেছেন৷ দিলীপ একটা বদ্ধ পাগল, রাহুল পাগলে পর্যবেশিত হচ্ছে৷ দেখা যাক ২০১৯ সালে কে শ্মশানে যায়৷’’

আরও পড়ুন: দিনহাটায় বোমা বিস্ফোরণে আহত পাঁচ কিশোর কিশোরী

জ্যোতিপ্রিয় আরও বলেন, ‘‘রাহুল সিনহা কখনও ভোটে জেতেনি তো৷ তাই জানে না৷ রাহুলকে আগে গ্রাম পঞ্চায়েত, পঞ্চায়েত সমিতি এবং জেলা পরিষদ থেকে দিতে আসতে হবে৷ বনগাঁর উপনির্বাচনে কেন্দ্রীয় বাহিনীর মাঝেও ১ লক্ষ ৪৬ হাজার ভোটে কপিলকৃষ্ণ ঠাকুর জিতেছিলেন৷ আমরা ৪২শে ৪২টাই পাব৷’’

এদিন রাজ্যের নগোরন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমও বলেন, ‘‘বিজেপি, রাহুল সিনহা বাজার গরম করার চেষ্টা করছে৷ পায়ের তলায় মাটি নেই৷ ’’

--
----
--