বহরমপুর: এক সময়ের অধীর চৌধুরীর ঘনিষ্ঠ বিধায়ক আজ শাসক দলে। দলত্যাগের পর আজ তিনিই অধীরের মূল প্রতিদ্বন্দ্বী। অথচ একসময় অধীরের ছায়াসঙ্গী ছিলেন কান্দির বিধায়ক তথা কান্দি পুরসভার চেয়ারম্যান অপূর্ব সরকার। এবার অধীর গড় থেকেই প্রচার শুরু করলেন তিনি।

বহরমপুর লোকসভা কেন্দ্রে সাংসদ অধীর রঞ্জন চৌধুরীকে পরাজিত করে ঘাসফুল ফোটাতে তাঁর উপরই ভরসা করেছেন দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

সম্প্রতি তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় লোকসভা নির্বাচনের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেছেন। আর এবার বহরমপুর লোকসভা কেন্দ্রে সাংসদ অধীর রঞ্জন চৌধুরীর বিরুদ্ধে শাসক দলের প্রার্থী হিসেবে কান্দির বিধায়ক অপূর্ব সরকারকে বেছেছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে এবার ৪২-এ ৪২ দিতে বদ্ধ পরিকর দল।

সেই লক্ষ্যে আর সময় নষ্ট করতে রাজি নয় শাসক দল। শুক্রবার দুপুরেই বহরমপুরে গান্ধী মূর্তির প্রাদদেশে মাল্যদান করে আনুষ্ঠানিক ভাবে প্রচার শুরু করলেন বহরমপুর লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী অপূর্ব সরকার। এদিন পায়ে হেঁটে গান্ধী মূর্তিতে গিয়ে মাল্যদান করেন অপূর্ব সরকার সহ জেলা তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব।

এদিন গান্ধী মূর্তিতে মাল্যদান করার পর অপূর্ব সরকার জানান একদিন গান্ধীকে যারা হত্যা করেছে তাদেরকে উৎখাত করতে তিনি গান্ধী মূর্তিতে মাল্যদান করে আনুষ্ঠানিক ভাবে প্রচার শুরু করলেন। এদিন তিনি বলেন জয়ের ব্যাপারে তিনি ১০০ শতাংশ নিশ্চিত। এখানে বিরোধীরা এক হয়েও তার জয় আটকাতে পারবে না। তিনি মনে করেন, প্রার্থী যেই হোক না কেন, মুখ্যমন্ত্রীর উন্নয়ন দেখেই মানুষ ভোট জোড়া ফুলে ভোট দেবে।