মমতার নির্দেশও অমান্য করার সাহস দেখাচ্ছেন তৃণমূল নেতারা

মানব গুহ, কলকাতা: হলটা কি তৃণমূল কংগ্রেসের? স্বয়ং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এর নির্দেশ অমান্য করছেন নেতারা। এতটা সাহস কি করে পাচ্ছেন তারা? উত্তর ২৪ পরগনার খড়দহ পঞ্চায়েত নির্বাচনে এমনই অবাক কাণ্ড ঘটিয়েছেন তৃণমূলের হেভিওয়েট নেতারা। 

পঞ্চায়েত ভোটে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব এড়াতে দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কড়া নির্দেশ দিয়েছিলেন যে, গতবারের জয়ী প্রার্থীদের এবারও টিকিট দেবে দল। সেই ঘোষণা পৌঁছে যায় জেলায় জেলায়।

অনেকটা কমেও যায় তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব। কারণ জয়ী প্রার্থীদের মনোনয়ন দাখিল করতে বাধা ছিল না। কিন্তু একেবারে উল্টো ঘটনা খড়দহ পঞ্চায়েত এলাকায়।

নেত্রীর কড়া নির্দেশ অমান্য করে প্রায় ২৫ জন জয়ী প্রার্থীকে পঞ্চায়েতের টিকিট দেননি নেতারা।

আর সেই নিয়েই শুরু হয়েছে জোর বিতর্ক। ইতিমধ্যেই গতবারের জয়ী প্রার্থীরা যারা এবার পঞ্চায়েত ভোটে টিকিট পাননি সেই সকল নেতাকর্মীরা নিজেদের অভিযোগ জানিয়েছেন দলে। তৃণমূল কংগ্রেসের বর্তমান সেকেন্ড ইন কমান্ড অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এর কাছে জমা পড়েছে একগুচ্ছ অভিযোগ। স্বয়ং মমতার কাছেও লিখিত অভিযোগ জানাবেন বঞ্চিত প্রার্থীরা বলে জানা গিয়েছে।

এর আগেই নেত্রীর নির্দেশ অমান্য করে খড়দহ পঞ্চায়েত এলাকার জন্য মন্ত্রী অমিত মিত্রের আপ্ত সহায়ক সরকারি কর্মী কনৌজ দাস রায়কে পর্যবেক্ষক করে বিতর্কে জড়িয়ে ছিলেন উত্তর ২৪ পরগনার জেলা সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। কলকাতা 24×7 এ এই খবর প্রকাশিত হবার পর বিতর্ক শুরু হওয়ায় কনৌজ দাস রায়কে পর্যবেক্ষক করা হয়নি।

এবার নেত্রীর নির্দেশ অমান্য করে জয়ী প্রার্থী দের বাদ দিয়ে ফের বিতর্কে জড়ালেন জেলার দায়িত্বে থাকা তৃণমূল নেতারা। তবে এবার বিতর্কে জেলার পর্যবেক্ষক সৌগত রায় ও অমিত মিত্র। ২৫ জনকে বাদ দেওয়ার নেপথ্যে এই দুই জন নেতা বলেই অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের অন্দরমহলে।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশ পেয়ে শেষ পর্যন্ত জয়ী প্রার্থীদের টিকিট দিতে সৌগত রায় রাজি হলেও বেঁকে বসেন অমিত মিত্র। এমনটাই অভিযোগ। এমনকি সৌগত রায় প্রার্থী তালিকায় সই করতে রাজি হননি বলেও তৃণমূল সূত্রে খবর। চাঞ্চল্যকর বিষয় হচ্ছে ওই প্রার্থী তালিকায় স্বাক্ষর করেছেন অমিত মিত্র। এমনই তথ্য জানা গিয়েছে তৃণমূল সূত্রে।

এই নিয়ে সৌগত রায় ও অমিত মিত্রকে প্রশ্ন করা হলে দুজনেই জানান, এই বিষয়ে কোন মন্তব্য করবো না। তবে জয়ী প্রার্থীরা আজই মমতার শরণাপন্ন হচ্ছেন বলেই তৃণমূল সূত্রে খবর। এই অবস্থায় নেত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় কি সিদ্ধান্ত নেন সেটাই এখন দেখার। কাড়ন এই মুহূর্তে বল দলনেত্রীর কোর্টে।

Advertisement
---
-----