স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: এক হকারকে প্রকাশ্যে কান ধরে ওঠবোস করার ঘটনায় বাঁকুড়া পুরসভার চেয়ারম্যান তথা তৃণমূল নেতা মহাপ্রসাদ সেনগুপ্তের নাম জড়ানোয় অস্বস্তিতে দল৷

এই ঘটনা ফেসবুক আর হোয়াটস অ্যাপের দৌলতে এখন ভাইরাল৷ যদিও পুরসভার চেয়ারম্যান তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

Advertisement

আরও পড়ুন: ক্যাপ্টেন খানের সঙ্গে প্রেম করছেন বুবলি?

‘ভাইরাল’ হয়ে যাওয়া ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে বাঁকুড়া শহরের প্রাণকেন্দ্র মাচানতলা মোড়ে এক হকারকে উঠে যেতে নির্দেশ দিচ্ছেন চেয়ারম্যান মহাপ্রসাদ সেনগুপ্ত।

মোহন দত্ত নামে ওই হকারের অভিযোগ, মঙ্গলবার ফুটপাতে জিনিসপত্র বিক্রির জন্য বসলে চেয়ারম্যান মহাপ্রসাদ সেনগুপ্ত বেশ কয়েকজন পুরকর্মী ও তাঁর সাকরেদদের নিয়ে চড়াও হন। গালিগালাজ, পুলিশের হাতে তুলে দেওয়ার পাশাপাশি তাঁকে প্রকাশ্যে কান ধরে ওঠবোস করতে বাধ্য করা হয় বলেও ওই হকার অভিযোগ করেন। তারপর তিনি ছাড়া পান বলে জানিয়েছেন হকার মোহন দত্ত।

আরও পড়ুন: ‘যে বন্যার্ত গোমাংস খাবে, তাঁকে উদ্ধার করবেন না’

তাঁর ভাই সাধন দত্ত বলেন, দাদার কান ধরে ওঠবোস করার ঘটনা সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যাওয়ায় তাঁদের পরিবারের সম্মানহানি হয়েছে। আত্মীয় পরিজনরা ফোন করে ঘটনার খবর নিচ্ছেন।

জেলা শহরে এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই বিভিন্ন মহলে তীব্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। একজন বয়স্ক হকারের সঙ্গে এই ধরনের আচরণ একজন জনপ্রতিনিধির কাছ থেকে আশা করা যায় না বলে অনেকে জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন: কোর কমিটি গঠন ঘিরে বিতর্ক তৃণমূলে

যদিও বাঁকুড়া পুরসভার চেয়ারম্যান মহাপ্রসাদ সেনগুপ্ত তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগই অস্বীকার করেছেন। এই অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি করেন৷ বলেন, ‘‘ওই হকারকে তিনি কখনই কান ধরে ওঠবোস করাননি। উনি নিজেই কান ধরে ওঠবোস করে তাঁর বাজেয়াপ্ত জিনিস ফেরত চান। আমরা তা ফেরত দিয়ে দিয়েছি। এখন কেউ কেউ রং চড়িয়ে এই ঘটনাকে একটা ইস্যু করতে চাইছে৷’’

আরও পড়ুন: জেল কুঠুরির শিল্পীদের হাতে রঙিন হবে খিদিরপুরের দুর্গা মণ্ডপ

----
--