প্রসেনজিৎ চৌধুরী: বাংলার ভোটযুদ্ধে এবার একঝাঁক খেলোয়াড় প্রার্থী ছিলেন৷ বেশিরভাগই ছিলেন ফুটবলের ময়দান থেকে৷ নব্বই মিনিটের এই খেলোয়াড়রা তারকা প্রার্থী হয়ে চমক দিয়েছিলেন৷ বৃহস্পতিবার ভোটের ফল বেরনোর পর দেখা গেল, ময়দানি ফুটবলাররা রাজনীতির ঝড়ে উড়ে গিয়েছেন৷ নব্বই মিনিটের লড়াকু ফুটবলারদের পিছনে ফেলে জিতেছেন বাইশ গজের ব্যাটসম্যান৷

লক্ষ্মীরতন শুক্লা: তৃণমূল কংগ্রেসের জয়ী বিধায়কদের তালিকায় একমাত্র খেলোয়াড় প্রার্থী হিসেবে ডানহাতি ব্যাটসম্যান এই তারকার নামটি দেখা যাচ্ছে৷ লক্ষ্মী জিতেছেন হাওড়া-উত্তর কেন্দ্র থেকে৷ ১৯৯৯ সালে জাতীয় দলের হয়ে শ্রীলঙ্কা এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে খেলেছিলেন তিনি৷ ২০১৪ সাল পর্যন্ত আইপিএলে খেলেছেন লক্ষ্মী৷

অন্যদিকে, ঘাসফুলের প্রার্থী তালিকায় থাকা দুই ফুটবলারকেই হেরে ভোটের ময়দান ছাড়তে হল৷

বাইচুং ভুটিয়া: শিলিগুড়ির তৃণমূল প্রার্থী ফুটবলের লড়াইয়ে বহু জয়-পরাজয়ের সাক্ষী৷ ১৯৯৫ থেকে ২০১১ সাল জাতীয় দলের অধিনায়ক ছিলেন পাহাড়ি বিছে৷ আন্তর্জাতিক ম্যাচে ৪০টি গোল করেছেন৷ কিন্তু সেই বাইচুংয়েরই বাইসাইকেল কিক কাজে এল না ভোটের লড়াইয়ে৷

রহিম নবি: জাতীয় ফুটবল দলের আর এক তারকা সৈয়দ রহিম নবিও ভোটের লড়াইয়ে হেরে গেলেন৷ পাণ্ডুয়া আসন থেকে দাঁড়িয়েছিলেন৷ ২০০৪ সাল থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত দেশের জার্সি পরে খেলেছেন নবি৷ সাত-সাতটি গোলও করেছেন৷ বাংলার ক্লাব ফুটবলের প্রাক্তন তারকা খেলোয়াড়৷ কিন্তু নিজের মাটি পাণ্ডুয়াতেও তাঁর সেই ইমেজ কাজে লাগল না৷ হারতে হল তাঁকে৷

হেরোর তালিকায় রয়েছেন আর এক ফুটবলারও

ষষ্ঠী দুলে: গড়ের মাঠের খ্যাতনামা ফুটবলার৷ ২০০০ সালে জাতীয় দলের হয়ে খেলেছেন৷ মাঝমাঠ সামাল দিতেন৷ এহেন ষষ্ঠীকে ধনিয়াখালি থেকে প্রার্থী করে চমক দিয়েছিল বিজেপি৷ তিনিও বেদম হয়ে গেলেন ভোটের লড়াইয়ে৷

সব মিলিয়ে তিন ফুটবলার ও এক ক্রিকেটার, এই নিয়ে জমেছিল বিধানসভা নির্বাচনের ক্রীড়াঙ্গন৷ সেখানে বাইশ গজের খেলোয়াড়ের ঝোড়ো ব্যাটিং জয় এনেছে৷ হেরে গেলেন নব্বই মিনিটের ফুটবল কৃতীরা৷ বোঝা গেল, ইনিয়ে বিনিয়ে রাজনীতির আঙিনায় যতই মাটির কথা বলা হোক না কেন, এখানে খেলার জগতের গ্ল্যামার পুরোটাই শুষে নেয় ইডেনের আলোকছটা৷

----
--