সোশ্যাল যুদ্ধেও বিজেপিকে টক্কর শাসকদলের

নিবেদিতা দে, কলকাতা: ‘‘বিনা যুদ্ধে নাহি দিব সূচাগ্র মেদিনী৷’’ আসন্ন লোকসভা ভোটে বিরোধীদের রুখতে খানিকটা এমনই পন করেছে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস৷ টার্গেট ৪২ এ ৪২ আসন৷ আর তা ধরে রাখতে মরিয়া তৃণমূল এবার সোশাল মিডিয়াকেই প্রধান অস্ত্র করে এগোচ্ছে৷ সেই লক্ষে কাজ করছে একাধিক সংগঠন৷ সম্প্রতি ‘Fam’নামের একটি ফেসবুক সংগঠন বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে৷ ২০১৫ সাল থেকেই তৃণমূলের সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ে কাজ করছে এই সংগঠন৷

সোমবার নজরুল মঞ্চে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় কর্মীদের উদ্দেশ্যে বার্তা দেন, ‘ডিজিটাল সৈনিক’তৈরি করে লড়াই করতে হবে৷ সেই কাজকেই ‘Fam’ আরও গতিময় করবে বলে জানা গেছে৷ আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর সেই লক্ষেই দলের শীর্ষ নেতৃত্বদের সামনে অঙ্গীকার করবে ‘Fam’৷ আগামী দিনে কীভাবে এগোবে তারা, কী ধরণের কাজ হবে সেই রূপরেখাই ঠিক করা হবে ওইদিন৷

- Advertisement -

বিরোধী বিজেপি-কে রুখতে ব্লকস্তর থেকে শুরু হবে লড়াই৷ প্রত্যেক এলাকায় ১ জন করে‘ডিজিটাল সৈনিক’তৈরি করে লড়তে হবে এমনটাই বার্তা দেন যুব সভাপতি। প্রতি বিধানসভা পিছু মোট ১০০ জন করে ‘ডিজিটাল সৈনিকে’ তৈরি করার জন্য ইতিমধ্যেই নির্দেশ পাঠানো হয়েছে জেলার নেতার কাছে৷ ডিজিটাল সৈনিকদের টার্গেট থাকবে, নতুন ৩ জন সদস্যকে যোগদান করানো৷

পাশাপাশি বিজেপিকে মোক্ষম জবাব দেওয়া৷ ‘Fam’ যদিও এই কাজটি আগেভাগেই শুরু করেছে বলেই দাবি সংস্থার সদস্যদের৷ কিভাবে হবে এই কাজটি? Fam-এর এক সদস্যের কথায়, ‘‘জেলায় জেলায় হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ করে এগোচ্ছি আমরা৷ হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপের মাধ্যমে প্রাথমিকভাবে কাজটি শুরু করেছি৷ এরপর অন্য ভাবনা চিন্তাও রয়েছে৷’’

অনেকেই বলেন, ২০১৪ সালে মূলত সোশ্যাল মিডিয়ায় ভর করেই দিল্লির মসনদ দখল করে বিজেপি৷ একজন সোশ্যাল এক্সপার্টকে দিয়ে এই কাজটি করে বিজেপি নেতৃত্ব৷ এবার সেই সোশ্যাল ময়দানেও বিজেপিকে এক ইঞ্চি জমি ছাড়তে নারাজ তৃণমূল কংগ্রেস৷ রাজ্যে ক্রমশই বিরোধী শক্তি হিসেবে স্থান করে নিচ্ছে বিজেপি৷ পঞ্চায়েত নির্বাচনে বেশ কয়েকটিতে জয়ী হয়ে নিজেদের জায়গা এ রাজ্যে পাকা করে নিচ্ছে তারা৷ আর তাতেই খানিকটা হলেও ভীত রাজ্যের শাসকদল৷

নবীন নেতারা সোশ্যাল মিডিয়া ব্যাপারটাতে সরগড় হলেও প্রবীণ নেতারা খুব একটা এখনও হস্তগত করে উঠতে পারেনি বিষয়টি৷ আর তাতেই সমস্যা৷ বাংলার ‘যুবরাজ’ অভিষেক তাই উঠেপড়ে লেগেছেন এইসব প্রবীণ নেতাদের স্যোশাল মিডিয়ার পাঠ পড়াতে৷ কারণ ইতিমধ্যেই তৃণমূল নেতৃত্ব ভালোই বুঝেছে ডিজিটালই মিডিয়ায় ভর করেই এ যাত্রায় পার হতে হবে৷ সেই লক্ষেই একাধিক সংগঠন তৈরি করে কাজে লাগানো হচ্ছে৷ তৃণমূলের এখন মূল লক্ষ্যই হল সোশ্যাল মিডিয়ায় ভর করে নবীন প্রজন্মকে পুরোপুরি নিজেদের দলে টানা৷

তবে তৃণমূলের এই সোশ্যাল মিডিয়ায় জোর দিয়ে ভোটে জেতার বিষয়টি কতটা সাফল্য পায় এখন সেটাই দেখার৷

Advertisement ---
---
-----