পঞ্চায়েত ভোটের পর নির্মল বাংলা অভিযানে ঝাঁপাবে পূর্ব বর্ধমান জেলা প্রশাসন

প্রতীকী ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, পূর্ব বর্ধমান: পঞ্চায়েত ভোট মিটলেই নির্মল বাংলা অভিযানে নতুন উদ্যোগে ঝাঁপিয়ে পড়তে চায় পূর্ব বর্ধমান জেলা প্রশাসন৷ সেই লক্ষ্যে ২০১৮-১৯ আর্থিক বছরের জন্য নতুন রূপরেখা তৈরি করা হয়েছে৷ সারা বছর ধরে নিবিড়ভাবে অভিযান চালানোর ক্যালেন্ডারও তৈরি করা হয়েছে৷ পঞ্চায়েত ভোট মিটলেই নয়া প্রতিনিধিদের দেওয়া হবে এসংক্রান্ত প্রশিক্ষণ৷ তাদের মাধ্যমেই নির্মল বাংলা অভিযানকে তৃণমূল স্তর পর্যন্ত ছড়িয়ে দিতে চায় জেলা প্রশাসন৷

প্রসঙ্গত পূর্ব বর্ধমান জেলাকে নির্মল জেলা বলে ঘোষণা করা হয়েছিল৷ তারপরেও বিভিন্ন মহল থেকে অভিযোগ উঠছে, খোলা আকাশের নিচেই চলছে মলমূত্র ত্যাগ৷ সেই সব অভিযোগকে অবশ্য বিশেষ গুরুত্ব দিতে নারাজ জেলা প্রশাসন৷ প্রশ্ন উঠছে তাহলে নয়া রূপরেখা তৈরি কেন? প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, জেলা জুড়ে ধারাবাহিকভাবে অভিযান চালাতেই এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে৷

পূর্ব বর্ধমানের নির্মল বাংলা অভিযানের জেলা কো-অর্ডিনেটর তপন কুমার পাল জানিয়েছেন, এই পরিকল্পনার দুটি পর্যায় রয়েছে৷ প্রথম পর্যায়ে, প্রতিটি বাড়িতে শৌচালয় তৈরি করা হবে৷ দ্বিতীয় পর্যায়ে, বিভিন্ন বাসস্ট্যান্ড এলাকায় জায়গা খুঁজে কমিউনিটি শৌচালয় তৈরি করা৷ বিষয়টি বিস্তারিতভাবে ব্যাখ্যা করে জানান, পঞ্চায়েত প্রতিনিধিদের নিয়ে এলাকা পরিদর্শন করানো হবে৷

- Advertisement -

তারা বাড়ি বাড়ি ঘুরে দেখবেন কোন বাড়িতে শৌচালয় আছে কোন বাড়িতে নেই৷ এই কাজে যুক্ত করা হবে গ্রামীণ স্বাস্থ্য কমিটি, আশা কর্মী ও অঙ্গনওয়ারি কর্মীদের৷ অভিযানের অন্যতম অঙ্গ হিসাবে জোর দেওয়া হয়েছে, স্কুলে স্কুলে বিজ্ঞানসম্মতভাবে ন্যাপকিন ব্যবহার ও তা নষ্ট করার প্রশিক্ষণের উপর। খাবার আগে ও শৌচকর্মের পরে সাবান দিয়ে হাত ধোওয়ার অভ্যাস তৈরি করার উপর জোর দেওয়ার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

দ্বিতীয় পর্যায়ে বিভিন্ন বাসস্ট্যান্ড এলাকায় জায়গা খুঁজে কমিউনিটি শৌচালয় তৈরি করা হবে৷ তপনবাবু জানান, এখনও বেশ কিছু বাসস্ট্যান্ড তথা জনবহুল এলাকা রয়েছে যেখানে কোনও কমিউনিটি টয়লেট নেই। তাই দ্বিতীয় পর্বের অভিযানে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। জানা গিয়েছে, পঞ্চায়েত ভোটের পর নতুন জনপ্রতিনিধিদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে৷

Advertisement
-----