আজ সরস্বতীর পুজো, পাটভাঙা শাড়ি-পাঞ্জাবিতে ছয়লাপ রাজপথ

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: আজ, সোমবার বাগদেবীর আরাধনাকে কেন্দ্র করে মেতে উঠেছে তিলোত্তমা কলকাতা থেকে মফঃস্বল সর্বত্রই৷সকাল থেকেই ঝকঝকে পরিষ্কার মাঘের আকাশ৷ ফলে সাত সকালেই স্নান সেরে স্কুল পড়ুয়া থেকে কলেজ পড়ুয়ারা- হাজির যে যার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে৷ দেবীকে অঞ্জলি প্রদান, পাতপেড়ে খিচুড়ি খাওয়ার পাশাপাশি বন্ধুদের সঙ্গে দিনভর প্রতিমা দর্শনের জন্য ব্যস্ত তাঁরা৷

শুধু কি তাই! নাহ্৷ সরস্বতী পুজো মানেই হলুদ বসন্ত, বাঙালির ‘ভ্যালেনটাইন ডে’৷ স্বভাবতই নতুন পাটভাঙা শাড়ি বনাম পাঞ্জাবিতে ছয়লাপ রাজপথ৷ যারা আগেই জোড়ি বনে গিয়েছে তাঁরা অঞ্জলি সেরেই যে শহরের কোনও এক নির্জন প্রান্তে সঙ্গী বা সঙ্গিনীর সঙ্গে প্রেম সাগরে ডুব দেবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না৷ উল্টোডাঙার মোড়ে কথা হচ্ছিল এক জোড়ির সঙ্গে৷ লাজুক কন্ঠে দু’জনেই জানাল-‘‘বছরের এই একটা দিন, সময়ে ঘরে ঢোকার কোনও নিয়ম নেই৷ ফলে দিনভর এই দিনটার দিকে তাকিয়ে থাকি৷’’

যারা এখনও সঙ্গী বা সঙ্গিনীকে এখনও খুঁজে পাননি, দিনভর তাঁদের চোখ যে সঙ্গী বা সঙ্গিনী খুঁজে চলবে- তা বলাইবাহুল্য৷ এক আধুনিকার কথায়, ‘‘প্রেম করতেই হবে- এমনটা আমি মনে করি না৷ কিন্তু এই বিশেষ দিন মায়ের পাট ভাঙা নতুন শাড়িতে উল্টোদিকের ছেলেটিকে আড়চোখে ঝারিমারার অনুভূতি, রোমাঞ্চটাই একেবারে অন্য ফ্লেভারের!’’

- Advertisement -

সরকারি-বেসরকারি স্কুল-কলেজ, বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠান, সংবাদ মাধ্যমের অফিস থেকে শুরু করে ক্লাবে ক্লাবে সরস্বতী পুজো শুরু হয়ে গিয়েছে৷ স্বভাবতই কলকাতা থেকে মফঃস্বল সর্বত্রই থিমের ছড়াছড়ি৷ কলকাতা থেকে কাকদ্বীপ- কোথাও পাহাড়-বণ্য প্রাণীর দেশ, কোথাও বরফের ঘর, কোথাও বাউল গানে মেতেছে যুবকের দল। থিমে উঠে এসেছে ‘চাঁদের পাহাড়’ থেকে ‘আমাজন অভিযান’। কোথাও বা কাপড়, থার্মোকল ও তুলো দিয়ে নিখুঁত হাতের কাজে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে হলঘরের ভিতরে বরফের ঘর৷

খাস কলকাতার বুকে কোথাও বা তুলে ধরা হয়েছে এক টুকরো গ্রাম৷ বাঁশ, চট, খড় দিয়ে কুড়েঘরের আদলে গ্রাম্য পরিবেশের মণ্ডপ তৈরি হয়েছে। সেই মণ্ডপেই ‘বর্ণ পরিচয়’ থেকে দেবীর আবির্ভাব – তুলে ধরা হয়েছে সবই৷ থিমে উঠে এসেছে বাংলার ঐতিহ্য, হারিয়ে যেতে বসা বাংলায় লোক গান৷একটি স্কুলের থিমে দেখানো হয়েছে একটি আদর্শ ও নির্মল বিদ্যালয় কেমন হওয়া প্রয়োজন সেটাই৷দরিদ্র ছেলেমেয়েদের স্কুলমুখী করার জন্য সচেতনতার বার্তাও রয়েছে। গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে শৌচাগার ব্যবহারের উপরে। কোথাও আবার দেবী হয়ে উঠেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রিয় কন্যাশ্রী৷পাশাপাশি তুলে ধরা হয়েছে কন্যা ভ্রূণ হত্যার চিত্রপটও৷ কোনও কোনও প্রতিষ্ঠান আবার তুলে ধরেছে ‘নেশামুক্ত ছাত্রসমাজ’। ধূমপান, মদ্যপান ও ড্রাগের নেশার কুফল নিয়ে রয়েছে চিত্র প্রদর্শনী।

এভাবেই রকমারি পরিবেশে আজ, সোমবার বাগ্‌দেবীর আরাধনায় মেতেছে আপামর রাজ্যবাসী৷

Advertisement ---
---
-----