ফ্যাশনের ছোঁয়ায় সাজবে রেল

দিল্লি: আধুনিকতার দিকে আরও এক ধাপ এগোল রেল৷ ফ্যাশন ডিজাইনারের হাতে এবার সেজে উঠবে ট্রেনের কামরাগুলি৷যাত্রী স্বাচ্ছন্দ্যের কথা মাথায় রেখেই তৈরি করা হবে দূরপাল্লা ট্রেনের কামরাগুলি৷

জানা গিয়েছে, আপাদমস্তক অ্যালুমিনিয়ামের চাদরে মুড়ে ফেলা হবে কোচগুলি৷ যাতে একটি স্ক্রুও চোখে না পড়ে৷শুধু তাই নয়, আধুনিক এই কামরার দরজা খোলা যাবে দু’দিকে৷ফলে ভারী ব্যাগ নিয়ে ট্রেনে ওঠা অনেক সহজ হবে বলে মনে করা হচ্ছে৷

দূরপাল্লার ট্রেনে আরও একটি বড় সমস্যা হল মোবাইল অথবা ল্যাপটপের চার্জিং পয়েন্ট৷ যা নিয়ে হামেশাই যাত্রীদের মধ্যে গণ্ডগোল বাঁধে৷ নয়া কোচগুলি তৈরির সময় নজর দেওয়া হবে এই বিষয়টির উপরও৷ পাশাপাশি ১৮ ওয়াটের সিএফএল বাল্বের পরিবর্তে কামরায় লাগানো হবে ৯ ওয়াটের এল ই ডি বাল্ব৷যার ফলে একদিকে যেমন উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে, অন্যদিকে সাশ্রয় হবে বিদ্যুৎ৷

- Advertisement DFP -

এবার আসা যাক শৌচাগারের কথায়৷আধুনিক কোচগুলিতে থাকবে স্টেইনলেস স্টিলের মডিউলার শৌচাগার৷ এই প্রথম ভারতীয় রেল দৃষ্টিহীন যাত্রীদের জন্য ব্রেইল স্টিকারের বন্দোবস্ত করতে চলেছে৷এর ফলে দৃষ্টিহীন যাত্রীদের সিট খুঁজে পেতে অসুবিধা হবে না৷ বসানো হবে সিসিটিভিও৷

খুব শীঘ্রই গোটা দেশের বিভিন্ন দূরপাল্লা রুটের ট্রেনে চাহিদা অনুযায়ী অত্যাধুনিক মোট ৫০,০০০ কোচের জোগান দেবে চেন্নাইয়ের ইন্টিগ্রাল কোচ ফ্যাক্টরি৷ আধুনিক এই কোচগুলির প্রতিটি কামরায় মোট ৬টি করে সিসি টিভি ক্যামেরা লাগানো থাকবে৷

শুক্রবার রেল মন্ত্রী সুরেশ প্রভু বলেন, খাবার থেকে শুরু করে কোচের অভ্যন্তরীণ সাজসজ্জার আধুনিকীকরণ করা হলে গঠনমূলক প্রভাব পড়বে রেলের ভাঁড়ারেও৷গত রেল বাজেটেই বলা হয়েছিল যাত্রী স্বাচ্ছন্দ্য আনার লক্ষ্যে দূরপাল্লার ট্রেনের কোচ নতুন করে সাজানোর পরিকল্পনা নেওয়া হচ্ছে। সেই অনুযায়ী ইতিমধ্যে ই সমস্ত দূরপাল্লার কোচের আধুনিকীকরণের কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে৷কোচের অভ্যন্তরীণ সাজসজ্জা কেমন হবে সে ব্যাপারে নকশা তৈরি করছে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ফ্যাশন টেকনোলজি এবং ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ডিজাইন৷

প্রাথমিক ধাপে আগামী কিছুদিনের মধ্যেই দেশজুড়ে মোট ৬০,০০০ কোচে ডাস্টবিন বসানো হবে৷ শুক্রবার রেলমন্ত্রী সুরেশ প্রভাকর প্রভু রেলভবনে ‘রেল কোচ ইন্টেরিয়র’ বিষয়ক এক সাংবাদিক সম্মেলনে জানিয়েছেন, খুব শীঘ্রই সমস্ত কোচে ডাস্টবিন বসানোর কাজ শেষ হয়ে যাবে৷

Advertisement
----
-----