আগরতলা:  আগামীকাল শনিবার গোটা রাজ্য অচল করে দেওয়ার ডাক ছটি উপজাতি সংগঠনের। পুলিশের গুলি চালানোর প্রতিবাদ, নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল সহ একাধিক ইস্যুতে গোটা ত্রিপুরা অচল করে দেওয়ার ডাক দেওয়া হয়েছে। ফলে আগামীকাল ত্রিপুরা জুড়ে বিভিন্ন ধরনের অশান্তির আশঙ্কা করা হচ্ছে। আর সেই আশঙ্কা থেকে ত্রিপুরা জুড়ে বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হচ্ছে শহরজুড়ে। মোতায়েন করা হচ্ছে বাড়তি পুলিশ কর্মী।

রাজ্য অচল করে ডাক দিয়েছে মূলত Indigenous Nationalist Party of Tripura (INPT)। এই সংগঠনের তরফে অবিলম্বে মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেবের পদত্যাগ দাবি করা হয়েছে। একই সঙ্গে পুলিশের গুলিতে আহত যুবকদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার দাবি জানানো হয়েছে। সংগঠনের তরফে হুঁশিয়ারি, মৃতের পরিবারকে ২০ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। শুধু তাই নয় সরকারি চাকরি দেওয়ার দাবিও জানানো হয়েছে।

INPT-এর সাধারণ সম্পাদক জগদীশ দেববর্মা জানান, কেন্দ্রের নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদে সাধারণ মানুষ বিক্ষোভ দেখাচ্ছিল। সেই সময় বিজেপি সরকারের নির্দেশে নির্বিচারে গুলি চালানো হয় বলে অভিযোগ তাঁর। সেই ঘটনায় কয়েকজন যুবক আহত হয়। সেই ঘটনার প্রতিবাদেই এই বনধের ডাক দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন জগদীশ দেববর্মা। ইতিমধ্যে এই বনধকে সমর্থন জানিয়েছে কংগ্রেস।

অন্যদিকে, এই বনধের বিষয়ে বিজেপির তরফে জানানো হয়েছে, ছটি উপজাতি সংগঠন যে বনধের ডাক দিয়েছে তার কোনও ভিত্তি নেই। সিপিএম এবং ছটি উপজাতি সংগঠন ষড়যন্ত্র করে এই বনধের ডাক দিয়েছে বলে মন্তব্য স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্বের।