ওয়াশিংটন: ফের এক গুরুত্বপূর্ণ আন্তর্জাতিক বৈঠকের সাক্ষী হতে চলেছে বিশ্ব৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আর রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের বৈঠকে বসতে চলেছেন৷ এই বিষয়ে ঐক্যমত্য হয়েছে মস্কো আর ওয়াশিংটন।

ফিনল্যান্ডের রাজধানী হেলসিঙ্কিতে ১৬ই জুলাই এই বৈঠক হতে পারে বলে জানিয়েছেন তিনি। উল্লেখ্য, নভেম্বরে এশিয়া প্যাসিফিক সামিটের সময় ভিয়েতনামে শেষবার দেখা হয়েছিল পুতিন ও ট্রাম্পের।

Advertisement

প্রেসিডেন্ট পুতিন ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা পরামর্শদাতা জন বোল্টনের এক বৈঠকের পর এই ঘোষণা করা হয়৷ এই বিষয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেছেন, আগামী মাসে ব্রাসেলসে ন্যাটোর বৈঠকের পর ভ্লাদিমির পুতিনের সাথে এই বৈঠক হতে পারে।

রুশ প্রেসিডেন্টের সাথে বৈঠকের পর যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা পরামর্শদাতা জন বোল্টন এক সাংবাদিক সম্মেলনে জানান এই বৈঠকের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার মধ্যে সম্পর্কে বরফ গলাতে চান দুই নেতা৷ প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও প্রেসিডেন্ট পুতিন দুজনই মনে করেন নিজেদের মধ্যে সমস্যা দূর করা ও সহযোগিতার সুযোগ বাড়ানোর উদ্দেশ্যে গুরুত্বপূর্ণ এই দুই দেশের নেতাদের একসাথে আলোচনা করে উচিত।

সাংবাদিকদের ট্রাম্প জানিয়েছেন, সিরিয়া যুদ্ধ ও ইউক্রেন সঙ্কট নিয়ে পুতিনের সাথে আলোচনা করতে পারেন তিনি। অন্যদিকে পুতিন বলেছেন, আমেরিকার সঙ্গে নতুন করে সুসম্পর্ক তৈরির সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে৷ দু’দেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক কিছুটা শীতল অবস্থায় রয়েছে বলে স্বীকারও করেন তিনি।

তিনি বলেন, দীর্ঘদিনের পরিকল্পনার ফসল এই বৈঠক৷ রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ এই বৈঠক৷ ট্রাম্প ও পুতিনের বৈঠকের বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে এখন মস্কোতে রয়েছেন মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বল্টন।

পুতিনের সঙ্গে বল্টনের বৈঠকের পরই ট্রাম্প-পুতিন বৈঠকের দিন ঘোষণা করা হয়৷ আলজাজিরার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পুতিন বল্টনকে বলেছেন, ‘আপনার মস্কো সফর রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে পূর্ণ সম্পর্ক স্থাপনের প্রথম পদক্ষেপ নিতে উৎসাহ যোগাবে।’

তবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বন্ধু রাষ্ট্রগুলি, যারা রাশিয়াকে কোণঠাসা করতে চায়, তাদের জন্য এই বৈঠক সুখবর নয় বলেই মনে করা হচ্ছে৷

----
--