কোথায় গেলেন টেলি সুন্দরী পায়েল

কলকাতা: টেলিভিশন জগতে অতিপরিচিত মুখ পায়েল দে৷ অতীতে ‘বেহুলা’, ‘তবু মনে রেখো’-র মতো একাধিক ধারাবাহিকে তাঁকে অভিনয় নজর কেড়েছিল দর্শকদের৷ কিন্তু সম্প্রতি টেলিদুনিয়ার এই প্রথম সারীর অভিনেত্রীকে দেখা যাচ্ছে না ছোটপর্দায়৷

শেষবার এই সুন্দরীকে দেখা গেছে ‘অর্ধাঙ্গিনী’ ধারাবাহিকে৷ কিন্তু হঠাৎ সেখানে ঘটল ছন্দপতন৷ তাঁর জায়গায় আসলেন অন্য এক অভিনেত্রী৷ টেলিপাড়ায় গুঞ্জন শুরু হয়েছিল নির্মাতাদের জন্য তিনি নাকি সিরিয়ালটি থেকে বাদ পড়ে গেছেন৷ তবে সম্প্রতি জনপ্রিয় সংবাদপত্রের একটি সাক্ষাৎকারে নায়িকা জানান, “আসলে এই বিরতি নেওয়াটা আমার হঠাৎ করে নেওয়া একটি সিদ্ধান্ত। প্রত্যেক তিন, চারমাস বাদেও আমি পরিবার এবং ঘনিষ্ঠ বন্ধুদের সঙ্গে বেড়াতে যাই। কিছুদিন আগেই একটি পাহাড়ি অঞ্চলে ট্রেক করতে গিয়েছিলাম। সম্প্রতিই ফিরলাম শহরে৷ তবে দর্শকদের জন্য সুখবর৷ খুব শিগগিরি ফিরছি টেলিভিশনে। তবে মুখ্য চরিত্রে নয়। একটু আলাদ রকমের চরিত্রে দেখতে পাবেন দর্শকরা। এখন বিশেষ কিছুই বলতে পারব না। কিছুদিনবাদের প্রোমো এয়ার করলে সকলে দেখতে পারবেন।”

আরও পড়ুন: ইফতার পার্টিতে স্বল্প পোশাক পড়ায় বিতর্কের শিরোনামে এই বলি সুন্দরী

- Advertisement -

আপাতত জমে উঠেছে ‘অর্ধাঙ্গিনী’ ধারাবাহিকটি৷ গত এপিসোডে দেখা গেছে, বাড়িতে উৎসবের মেজাজে দেখা রয়েছে সকলে৷ কারণ বাড়ির সকলের মতে ফের উমাপতি (রাহুল) এবং ইশ্বরী (নবনীতা) বিয়ে করতে চলেছে৷ পরিবারের সকলের মধ্যে খুশির আমেজ থাকলেও উমার মা কিন্তু ইশ্বরীকে মেরে ফেলার ছক কষছে৷ সেই মতো বাড়িতে এন্ট্রি নিয়ে এক অপরিচিত লোক৷ সে নিজেকে পরিচয় দেয় ফটোগ্রাফার হিসাবে৷ সময় মতো সকলেই হাজির হয়েছেন অনুষ্ঠানের জায়গায়৷ এমনকি ইশ্বরীর বাপের বাড়ির লোকজনরাও আসেন উমার বাড়িতে৷ বিয়ের অনুষ্ঠান শান্তি মতোই চলছিল হঠাৎ ইশ্বরী লক্ষ্য করেন উমার মাথার ওপরে যে ঝাড়বাতিটা রয়েছে, তা নড়ছে৷ ক্ষনিকের মধ্যেই সে বুঝতে পারে যে ঝাড়বাতিটা পরবে৷ এবং মুহূর্তের মধ্যে সে ঝাপিয়ে পড়ে উমাকে বাঁচাতে৷ অল্পের জন্যে রক্ষা পায় দুজনে৷

আরও পড়ুন: ঝুমা বৌদির হট ভিডিওতে কাত ঠাকুরপোদের দল

এদিকে লক্ষভ্রষ্ট হয় উমার মায়ের৷ কারণ তিনি চেয়েছিলেন ইশ্বরীর ওপর ঝাড়বাতিটা পড়ুক৷ কিন্তু সেটা পড়ে উমার উপর৷ অন্যদিকে ঘটনাটার পর সকলের কপালে চিন্তার ভাঁজ পরে যে কী করে এই ঘটনাটি ঘটল৷ কারণ ঝাড়টা নিত্যদিনই পরিস্কার হয় এবং প্রত্যেকবছরেই দড়ি পাল্টানো হয়৷ এমন সময় ইশ্বরী লক্ষ করেন যে ঝাড়ের দড়ি বাধা যেখানে ছিল সেখানে রয়েছে সেই ফটোগ্রাফার৷ সকলেই বুঝতে পারে যে এটা তাঁর কারসাজী৷ কিন্তু কার বুদ্ধিতে সে এটা করেছে তা জানতে চায় উমা এবং ইশ্বরী৷ তবে সকলের চোখে ধুলো দিয়ে ফটোগ্রাফারটি পালিয়ে যায়৷ বাড়ির ছেলেরা তাঁর পিছু নিলেও হাতের নাগালে বেরিয়ে যায় সে৷ তবে ইশ্বরীর সন্দেহ তাঁর শাশুড়ির দিকেইষ আদৌ এই ঘটনায় তাঁকে ধরতে পারবে কিনা জানতে গেলে দেখতে হবে আগামী এপিসোড৷

Advertisement
---