বাংলাদেশের দুই যুবতীকে দেহ ব্যবসায় নামানোয় বাংলার যুবকের ভয়ঙ্কর পরিণতি

স্টাফ রিপোর্টার, বহরমপুর: দুজন মেয়েকে দিয়ে দেহ ব্যবসা করানোর অপরাধে এক ব্যক্তিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের নির্দেশ দিল কান্দি মহকুমা আদালত৷ এই রায় ঘোষণা করেছেন বিচারপতি সন্দীপ কুমার মান্না৷

সরকারি আইনজীবী সুনীল চক্রবর্তী জানান, সালার থানার চুনশহর গ্রাম থেকে ২০১৬ সালের ১৪ অগস্ট বাংলাদেশের নাগরিক এক যুবতীকে পুলিশ উদ্ধার করে৷

আরও পড়ুন: প্রতিবেশী দেশে সৌর বিদ্যুৎ ঘাঁটি তৈরি করবে এই দেশ!

- Advertisement -

ওই যুবতী স্থানীয় সাপু সেখের বাড়িতে ছিল৷ পরে পুলিশ তদন্ত নেমে আরও এক বাংলাদেশের নাগরিক যুবতীকে উদ্ধার করে৷ অভিযোগ এই সাপু শেখ মুর্শিদাবাদ-সহ রাজ্যের বিভিন্ন জায়গা এদের দু’জনকে দিয়ে দেহ ব্যবসা করাত। লালবাগ, বর্ধমান ও মায়াপুর-সহ বিভিন্ন জায়গায় দেহ ব্যবসার সঙ্গে লিপ্ত ছিল।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, সাপু শেখের বিরুদ্ধে একাধিক ধারায় মামলা রুজু করে পুলিশ। এক যুবতী বাংলাদেশের খুলনা জেলার মোকামপুর বাড়ি৷ অন্য যুবতীর বাড়ি বাংলাদেশের দিনাজপুর জেলায়৷ দু’জনকে বাড়িতে বকাবকি করেছিল৷

আরও পড়ুন: কর্তব্যরত অবস্থায় হৃদরোগে মৃত্যু সিআরপিএফ জওয়ানের

তাই বাংলাদেশ থেকে পশ্চিমবঙ্গে কাজ পাইয়ে দেওয়ার নাম করে ২০১৬ সালে মনি নামে এক ব্যক্তি এখানে তাদের নিয়ে আসে৷ পরে তাদেরকে দেহ ব্যবসা করতে বাধ্য করা হয়৷ এই ঘটনার জেরে সালার থানার পুলিশ মোট দশজনকে গ্রেফতার করেছে।

মোট ১২ জনের সাক্ষ্য গ্রহণের ভিত্তিতে মঙ্গলবার সাপু সেখকে দোষী সাব্যস্ত করে। আগেই নয়জনকে বেকসুর খালাসের নির্দেশ দেন আদালত।

আরও পড়ুন: ইমরানের গোপন মেসেজ প্রকাশ করবেন রেহাম

সাপু সেখকে দোষী সাব্যস্ত করে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের নির্দেশ, ২০ বছরের সাজা, ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে পাঁচ মাস জেল হেফাজতে থাকার নির্দেশ দেন আদালত৷ দুই জন বাংলাদেশের নাগরিককে ২০ লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দিতে হবে রাজ্যে সরকারের পক্ষ থেকে৷

আগামী এক মাসের মধ্যে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো জন্য নির্দেশ দেন বিচারক সন্দীপকুমার মান্না।

আরও পড়ুন: টানা বৃষ্টিতে সর্তকতা জারি তিন নদীতে

Advertisement ---
-----