শ্রীনগর: জম্মু কাশ্মীরের শ্রীনগরে সিআরপিএফ মুখ্য কার্যালয়ের পাশে সোমবার থেকে শুরু হওয়া এনকাউন্টার শেষ হল আজ মঙ্গলবার বিকেলে৷ এই এনকাউন্টারে দুই জঙ্গিকে খতম করেছে সেনা৷ ৩২ ঘন্টা ধরে চলা এই এনকাউন্টারে সিআরপিএফের এক জঙ্গি শহিদ হয়েছেন৷

জানা গেছে সোমবার ভোর সাড়ে চারটে নাগাদ কয়েকজন জঙ্গিরা হঠাৎই হামলা চালায় সিআরপিএফ ক্যাম্পের উপর৷ হাতিয়ার সমেত ক্যাম্পে ঢোকার চেষ্টা করে তারা৷ তখন পাশেরই এক বাড়িতে এনকাউন্টার চলছিল৷ এনকাউন্টার শেষ হওয়ার পরেই জম্মু কাশ্মীর পুলিশএর তরফ থেকে প্রেস কনফারেন্স করা হয়৷

সেই প্রেস কনফারেন্সে জানান হয় শ্রীনগরের রিহাইসি এলাকায় সিআরপিএফের ২৩ ব্যাটালিয়ানের জওয়ানদের কয়েকজনের গতিবিধির ওপর সন্দেহ হয়৷ সন্দেহ হওয়ায় তাদের ধরার চেষ্টা করা হয়৷ সে সময় ওই এলাকা ঘিরে ফেলে বেশকিছু জায়গায় সার্চ অপারেশনও চলছিল৷ সেসময় একটি নির্নীয়মাণ বাড়ি থেকে জঙ্গিরা গুলি চালাতে শুরু করে৷ এরপরই ওই বাড়িটিকে ঘরে ফেলা হয়৷ গুলির লড়াই শুরু হতে সিআরপিএফের এক জওয়ান জঙ্গিদের গুলিতে শহিদ হন৷ তবে এরপর জঙ্গিদের কাবু করে ফেলা হয়৷ দুই জঙ্গিকেই খতম কার হয়েছে৷

প্রেস কনফারেন্সে জম্মু কাশ্মীর পুলিশের আইজি জানান, এই এনকাউন্টার শেষ হওয়ার পর বেশ কিছু অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে৷ জঙ্গিদের পরিধেয় বস্ত্র দেখে মনে করা হচ্ছে তারা লস্কর জঙ্গি গোষ্ঠির৷ এই এনকাউন্টারে এক জিটিপি কনস্টেবলের ঘুলিতে আঘাত লেগেছে৷ তবে আঘাত গুরুতর নয় বলে এই প্রেস কনফারেন্সে জানান হয়েছে৷ এসএমএইচএস হাসপাতালে তাঁর চিকিৎসা চলছে৷ আরও জনান হয় এই এনকাউন্টার যেহেতু ঘন জনবসতিপূর্ণ এলাকায় চলছিল তাই খুব দ্রুত ওই এলাকার বাসিন্দাদের তাঁদের বাড়ি থেকে অন্যত্র নিয়ে গিয়ে এলাকা খালি করিয়ে দেওয়া হয়৷ এই ঘটনায় সম্পূর্ণ সহযোগিতা করায় জম্মু কাশ্মীর পুলিশের তরফ থেকে শ্রীনগরের বাসিন্দাদের ধন্যবাদ জানান হয়েছে৷ এই এনকাউন্টারে এলাকায় কোনও বড় ক্ষয়ক্ষতিও হয়নি বলে জানান হয়েছে৷ আইজি সিআরপিএফ জানান অপারেশন চলাকালীন পাঁচ সিআরপিএফ জওয়ানের পরিবারকেও এই অপারেশনের সময় সুরক্ষিত বের করে আনা হয়৷

উল্লেখ্য, অন্যদিকে শনিবার ভোরের দিকে আলো-আঁধারির সুযোগ নিয়ে জম্মু-কাশ্মীরের সাঞ্জোয়ান সেনা ক্যাম্পে হামলা চালায় জঙ্গিরা৷ সেনা ক্যাম্পে ঢুকেই তারা এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে শুরু করে৷ জানা গিয়েছে, কয়েকজন ক্যাম্পের পিছনে হামলা করে এবং কিছুজন ভিতরে ঢুকে পড়ে৷ এর পর গুলি চালানো শুরু হয়৷ টানা ৩০ ঘণ্টার অভিযান শেষ হতে না হতেই নতুন করে করণনগরে শুরু হয় জঙ্গি নিকেশ অভিযান৷

আর্মি ক্যাম্পে হামলার জেরে জম্মু সহ সমগ্র উপত্যকায় জারি হয় লাল সতর্কতা৷ একইসঙ্গে পাকিস্তান সীমান্তবর্তী পঞ্জাব, গুজরাত, রাজস্থানে জারি করা হয় সতর্কতা৷

এর আগে গোয়েন্দাদের অনুমান ছিল, শুধু জইশ নয়, হামলাতে জড়িত থাকতে পারে হিজবুল মুজাহিদিন জঙ্গি সংগঠনও৷ তবে লস্কর-ই-তইবা সমগ্র ঘটনার দায় স্বীকার করে নিয়েছে বলে জানা গিয়েছে৷

------------------------------------- ©Kolkata24x7 এই নিউজ পোর্টাল থেকে প্রতিবেদন নকল করা দন্ডনীয় অপরাধ৷ প্রতিবেদন ‘চুরি’ করা হলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে -------------------------------------