পরাগ মজুমদার, মুর্শিদাবাদ: ইন্দো-বাংলা সীমান্তের পুলিশের নজরে থাকা মাদক নেটওয়ার্কের অন্যতম ‘‌মোস্ট ওয়ান্টেড’ মজিবুর রহমান ও আনিকুল ইসলাম সামসেরগঞ্জ পুলিশের কবজায় আসতেই সর্বত্রই শুরু হয়েছে চাঞ্চল্য। দীর্ঘ দিন মাদক সীমান্তে চলা মাদক জগতের কারবারের সঙ্গে যুক্ত এই দুই পাচারকারীকে ধরতে ওতপেতে বসে ছিল পুলিশ।

মুর্শিদাবাদের ভারত বাংলাদেশ লাগোয়া সামসেরগঞ্জ থানার পুলিশের কাছে বিভিন্ন ইমপুট মারফৎ খবর আসছিল মজিবুর,আনিকুল মুর্শিদাবাদের সামসেরগঞ্জ এলাকায় যে কোন সময় ঢুকতে পারে। খবর পেয়েই সেই মত ব্লু-প্রিন্ট তৈরিতে নেমে পরে সামসেরগঞ্জ থানার পুলিশ।সামসেরগঞ্জ থানার ওসি অমিত ভকতের নেতৃত্বে টিম তৈরি করে অভিযানে নামে পুলিশ। মেলে বড় সর সাফল্য।কার্যত ক্রেতা সেজে পুলিশ ওই দুই কারবারিকে বাসুদেবপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে বমাল কোটি টাকার অধিক উন্নতমানের মাদক হেরোইন সমেত গ্রেপ্তার করে।তার কাছ থেকে ১কেজি ৩৫০ গ্রাম হেরোইন উদ্ধার করা হয়। জেরায় তার কাছ থেকে বাজেয়াপ্ত করা হয় সিমকার্ড,মোবাইল ফোন। সেখানেই হদিস মিলছে আন্তঃরাজ্যের লিঙ্কের।

Advertisement

পুলিশ সূত্রে প্রাথমিক ভাবে জানা যায়,মজিবুরের বাড়ী লালগোলা থানার নবপল্লী এলাকায় ও তার সহযোগী আনিকুল বাড়ীও লালগোলার পন্ডিতপুর এলাকায়।ধৃতরা কেবল এই জেলাতেই নয় তাদের কারবার উত্তর প্রান্ত শিলিগুড়ি,দার্জিলিং এ রমরমিয়ে চলত।পুলিশ ম্যারাথন জেরা করে বাকিদের নাগাল পেতে মরিয়া হয়ে উঠছে।

ধৃতের বিরুদ্ধে এন. ডি.পি.এস এক্ট এর u/c ২১সি/২৯ ধারায় মামলা ঋজু করা হয়েছে।আজ বৃহস্পতিবার সাত দিনের পুলিশি হেপাজত চেয়ে এদের এন. ডি.পি.এস আদালতে তোল হবে।এই পুর অভিযান বিষয়ে সামসেরগঞ্জ থানার ওসি অমিত ভকত বলেন, “মজিবুর,আনিকুল এরা দীর্ঘদিন ধরে ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে মাদক কারবারের নেটওয়ার্ক চালাচ্ছিল।পুলিশের ওয়ান্টেড তালিকায় থাকা এই দুই পাণ্ডাকে জের করে আগামী দিনে মাদক কারবারের অনেক তথ্য মিলবে৷”

----
--