বড় ধাক্কা তৃণমূলের! দল ছেড়ে বিজেপিতে নাম লেখানোর হিড়িক

ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, বর্ধমান: অবশেষে বিজেপিতে আনুষ্ঠানিকভাবে যোগ দিলেন বর্ধমান জেলা পরিষদের তৃণমূলের দুই বিদায়ী সদস্য গোলাম জার্জিস এবং রুবী ধীবর। তাঁদের সঙ্গে যোগ দিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের আউশগ্রাম-২ এর তপশীলি জাতি উপজাতি ও অনগ্রসর সেলের কার্যকরী সভাপতি অশোক মালাকার৷ বড়শুল জুট মিলের তৃণমূল শ্রমিক সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক শিবনাথ সিং।

শনিবার কলকাতায় বিজেপির সদর দফতরে কৈলাশ বিজয়বর্গী তাঁদের হাতে বিজেপির দলীয় পতাকা তুলে দেন। হাজির ছিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ, মুকুল রায়, রাহুল সিনহা প্রমুখরাও। একেবারেই কংগ্রেসের ছাত্র পরিষদ থেকে রাজনীতির শুরু করেন গোলাম জার্জিস। ছাত্র পরিষদের সাধারণ সম্পাদক হিসাবে দাপিয়ে রাজনীতি করেন তিনি। ইঞ্জিনিয়ারিং-এর ছাত্র গোলাম জার্জিস যুব কংগ্রেস এবং জাতীয় কংগ্রেসের একাধিক পদেও ছিলেন। দফায় দফায় বাম রাজনীতির হাতে আক্রান্তও হয়েছেন।

বর্ধমানের দেওয়ানদীঘি এলাকায় কংগ্রেস নেতা কাশীনাথ খুনের ঘটনায় অল্পের জন্য তিনি প্রাণে রক্ষা পান। আত্মগোপন করে থাকতে হয় তাঁকে বেশিকিছুদিন। এরপর কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূল কংগ্রেস পত্তন করার সময় অবিভক্ত বর্ধমান জেলায় যে চার জন নেতা অগ্রণী ভূমিকা নেন তাঁদের মধ্যে ছিলেন গোলাম জার্জিস। বাকি তিন জনেই এখন তৃণমূল কংগ্রেসের কার্যত ব্রাত্য হয়েই রয়েছেন।

- Advertisement DFP -

ইতিমধ্যে গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে জেলা পরিষদের আসনে জয়ী হয়ে গোলাম জার্জিস বর্ধমান জেলা পরিষদের জনস্বাস্থ্য দফতরের কর্মাধ্যক্ষ নির্বাচিত হন। কিন্তু তাঁকে দলীয়ভাবে সরিয়ে দেওয়া হয় একাধিক অভিযোগের ভিত্তিতে। যদিও গোলাম জার্জিস জানিয়েছেন, তাঁকে কী কারণে সরানো হয়েছে সেই বিষয়ে তিনি কিছুই জানেন না। এমনকি সদ্য শেষ হওয়া পঞ্চায়েত নির্বাচনে তাঁকে প্রার্থী করেনি তৃণমূল কংগ্রেস। রুবী ধীবরকেও প্রার্থী করেনি তৃণমূল কংগ্রেস। যদিও দলের এই সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারেননি গোলাম জার্জিসের অনুগামীরা। অনুগামীদের চাপে তিনি নির্দল হিসাবে মনোনয়নপত্র জমাও দেন। কিন্তু তৃণমূল কংগ্রেসের কৌশলী চাপে তিনি মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার করে নেন।

গোলাম জার্জিস জানিয়েছেন, খোদ দলের উর্ধ্বতন নেতৃত্ব তাঁকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন৷ তাঁকে দলে সসম্মানে ফিরিয়ে নেওয়া হবে। কিন্তু হয়নি। কার্যত তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে তাঁকে দফায় দফায় অপমানিতই করা হয়েছে। তাই তিনি দল ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। এদিন আনুষ্ঠানিকভাবে বিজেপিতে যোগ দিয়ে তিনি জানিয়েছেন, বিজেপি দলের হয়ে তিনি শুধু কাজই করবেন না। ইতিমধ্যেই বিজেপির সংখ্যালঘু সেলের বিষয়ে তাঁকে কাজ করার নির্দেশ দিয়েছেন বিজেপির রাজ্য নেতৃত্ব। তিনি এরপর যতদিন বাঁচবেন বিজেপিই করবেন। কারণ তৃণমূল কংগ্রেস তাঁকে কোনও মর্যাদাই দেয়নি।

অন্যদিকে, গোলাম জার্জিস সহ এই চার জন তৃণমূল নেতৃত্ব তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেয়৷ তাঁদের সম্পর্কে খোদ তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি তথা রাজ্যের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ জানিয়েছেন, ওই চার জনের দলত্যাগে তৃণমূলের কোনো ক্ষতি হবে না। অনেক আগেই তাঁরা বিজেপির সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন। এই বিষয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের দলের ওপর কোনও প্রভাব পড়বে না।

অন্যদিকে, বর্ধমান জেলা পরিষদের এক প্রভাবশালী নেতা জানিয়েছেন, তৃণমূল কংগ্রেসের ব্যক্তি বিশেষের কোনও মূল্য নেই। মমতা বন্দোপাধ্যায়ই একমাত্র নেত্রী। কোটি কোটি মা মাটি মানুষের কর্মীই সম্পদ তৃণমূলের। সেখানে কে গেল তা নিয়ে কোনও প্রভাবই পড়বে না দলের ওপর।

Advertisement
----
-----