হোয়াটসঅ্যাপে সময় কাটানোয় পাত্রীর সঙ্গে বিয়ে ভেস্তে দিল পাত্রপক্ষ

লখনউ: মেয়ে হোয়াটসঅ্যাপে মগ্ন থাকে সারাদিন৷ নাওখা খাওয়া ভুলে মোবাইল নিয়ে ঘাটাঘাটি করে দিন রাত৷ হোয়াটসঅ্যাপের এমনই নেশা যে বিয়ের দিন পাত্রপক্ষকে অপেক্ষা করিয়ে রাখে দীর্ঘক্ষণ৷ তাই বিরক্ত হয়ে পাত্রপক্ষ তড়িঘড়ি ভেঙে দেন সেই বিয়ে৷ যদিও পাত্রপক্ষের অভিযোগ উড়িয়ে পাত্রীপক্ষ জানিয়েছে, দাবিমতো পণ না দেওয়াতেই বিয়ে ভেঙে দিয়েছে ছেলের বাড়ি৷

ঘটনাটি উত্তরপ্রদেশের আমরোহা জেলার৷ ছেলের বাড়ি থেকে জানা গিয়েছে, বুধবার বিয়ের দিন পাত্রপক্ষকে নওগাঁও সাদাত গ্রামে অপেক্ষা করিয়ে রাখে পাত্রী৷ এরপরই পাত্রীপক্ষকে ফোন করে বিয়ে ভেঙে দেওয়ার কথা জানায় পাত্রপক্ষ৷ ফোনে বলা হয়, হোয়াটসঅ্যাপের নেশায় মগ্ন মেয়েকে বাড়ির বউ করবেন না তারা৷

যদিও ছেলের বাড়ির অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দিয়েছে মেয়ের বাড়ির লোকজন৷ তাদের পাল্টা অভিযোগ, ছেলের বাড়ি বিয়ে ভেঙে দিয়েছে কারণ ওরা শেষ মুহূর্তে পণ চেয়ে বসে৷ পুলিশের কাছে অভিযোগে মেয়ের বাবা জানিয়েছেন, ফকিরপুরার এলাকার কামার হায়দারের ছেলের সঙ্গে মেয়ের বিয়ে ঠিক করেন৷

- Advertisement -

বিয়ের দিন আত্মীয় স্বজন সকলে পাত্রপক্ষের জন্য অপেক্ষা করছিল৷ কিন্তু সময় পেরিয়ে যাওয়ার পরও ছেলের বাড়ি থেকে কেউ না আসায় তাদের ফোন করি৷ ছেলের বাবা ৬৫ লক্ষ টাকা দাবি করে৷ এত টাকা জোগাড় করতে না পারায় ওরা বিয়ে ভেঙে দেয়৷ অপরদিকে পুলিশের কাছে ছেলের বাড়ি বিয়ে ভাঙার জন্য মেয়ের মাত্রাতিরিক্ত হোয়াটসঅ্যাপের নেশাকেই দায়ী করেছে৷ দু’পক্ষের অভিযোগ খতিয়ে দেখছে পুলিশ৷

Advertisement ---
---
-----