পাটনা: লোকসভা ভোটের মুখে গেরুয়া শিবিরকে জোর ধাক্কা দিতে চলেছে রাষ্ট্রীয় লোক সমতা পার্টি৷ বিহারে আসন নিয়ে অসন্তোষের জেরে এনডিএ ছেড়ে বেরিয়ে আসতে পারেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী উপেন্দ্র খুশওয়াহা৷ বৃহস্পতিবারই এই নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন৷ খুশওয়াহা অনুগামীদের মতে, আজই সেই ঘোষণা সেরে ফেলবেন আরএলসিপি প্রধান৷ বিজেপি ছেড়ে সম্ভবত বিহারের বিরোধী জোটে হাত মেলাতে পারেন বলে জল্পনা৷

এদিকে ভোটের মুখে খুশওয়াহার শিবির বদল নিঃসন্দেহে নরেন্দ্র মোদী ও অমিত শাহের কাছে বড় ধাক্কা হতে চলেছে৷ এমনিতেই মোদী-শাহ জমানায় এনডিএতে শরিকদলগুলিকে যথাযথ মর্যাদা ও সম্মান দেওয়া হয় না বলে অভিযোগ ওঠে৷ খুশওয়াহার শিবির বদল সেই অভিযোগকেই মান্যতা দেবে৷ ফলে বিরোধীরা মোদীকে আক্রমণ করার হাতিয়ার পেয়ে যাবে৷ অপরদিকে রাজনৈতিক মহলের মতে, গতবারের সেই মোদী হাওয়া অনেকটাই শান্ত৷ একের পর এক নির্বাচনে বিজেপির ভরাডুবি লক্ষ্য করা গিয়েছে৷ তাই এই সময় শরিক দলগুলিকে আগলে রাখাই বড় চ্যালেঞ্জ ছিল অমিত শাহের কাছে৷ কিন্তু তারাই এখন মাথাব্যাথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে৷

কয়েকমাস আগে বিহারে এসে নীতীশের দলের সঙ্গে আসনরফা একরকম চূড়ান্ত করে যান অমিত শাহ৷ ৪০টি লোকসভা আসন বিশিষ্ট বিহারে জেডি(ইউ) ও বিজেপির মধ্যে যা আসনরফা হয়েছে তারপর অন্যান্য শরিক দলগুলির জন্য সামান্যই আসন পরে থাকে৷ এতেই গোঁসা হয় কেন্দ্রের মানবসম্পদ উন্নয়নমন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী খুশওয়াহার৷ তিনি বিজেপিকে ৩০ নভেম্বর অবধি সময় দেন বিহারে আসনরফা চূড়ান্ত করার৷

কিন্তু বিজেপি থেকে কোনও সাড়াশব্দ না মেলায় ক্ষুব্ধ খুশওয়াহা এনডিএ ছেড়ে বহিস্কৃত জেডি(ইউ) নেতা শরদ যাদবের দল লোকতান্ত্রিক জনতা দলের সঙ্গে মিশে যাওয়ার কথা চিন্তাভাবনা করেছেন বলে খবর৷ এই পরিস্থিতিতে এনডিএর ফাটল আরও চওড়া করতে আরজেডিও জানিয়ে দিয়েছে নতুন রাজনৈতিক পার্টনারের জন্য তারা বেশকিছু আসন ছাড়তে রাজি৷ সূত্রের খবর, শরদ যাদব ও খুশওয়াহা দু’জনে হাত মেলালেও লোকসভার মতো বড় ভোটের আগে কোনও শক্ত খুঁটি ধরেই নির্বাচনী ময়দানে নামবে৷ সেই শক্ত খুঁটি হতে পারে লালুর দল আরজেডি৷

----
--