এনএসজিতে ভারতের পাশেই রয়েছে আমেরিকা

নয়াদিল্লি: পরমাণু শক্তিধর দেশ ভারত সারা বিশ্বে তার গণতান্ত্রিক আবহের জন্য সম্মানিত। তাই এনএসজি–তে ভারতের সদস্যপদকে সমর্থন জানিয়েছে আমেরিকা। তিনদিনের ভারত সফরের শেষ দিন, বৃহস্পতিবার সাংবাদিক সম্মেলনে একথা বললেন, রাষ্ট্রপুঞ্জে মার্কিন রাষ্ট্রদূত নিকি হ্যালি।

তিনি বলেন, ভারত এবং আমেরিকা দু’‌দেশই ধর্মের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী। সহনশীলতাতেও দু’‌দেশই একরকম। উল্লেখ্য ২০১০ সালে সেখানে যোগ দেওয়ার সময় ভারতকে সমর্থনের কথা জানিয়েছিলেন তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা।

নিকি আরও বলেন, শাংরি–লা বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি যখন মুক্ত ভারত–প্রশান্ত অঞ্চলের কথা বলেছিলেন, তা সমর্থন করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। কারণ, ভারতের লক্ষ্য আশাব্যঞ্জক ছিল।
এর আগে বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের সঙ্গে দেখা করেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত। সেখানে তিনি বলেন, পাকিস্তানকে তাদের বন্ধু হিসেব মর্যাদা দিলেও আমেরিকা কখনওই সহ্য করবে না, যে পাকিস্তানের মাটি সন্ত্রাসবাদীদের স্বর্গভূমি হয়ে উঠছে। এই অবস্থার দ্রুত বদল চায় আমেরিকা। ভারতের সঙ্গে আমেরিকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক সুদৃঢ় হওয়ার কারণ হিসেবে তিনি বলেন, দু’‌দেশই একরকম গণতান্ত্রিক মতাদর্শ, সংস্কৃতি, ধর্মীয় সহিষ্ণুতা, সন্ত্রাসবাদ বিরোধিতার মতো ইস্যুতে বিশ্বাসী।

- Advertisement -

এদিন সকালে দিল্লির গৌরীশঙ্কর মন্দির, জামা মসজিদ শিশগঞ্জ সাহিব গুরুদ্বার এবং সেন্ট্রাল ব্যাপটিস্ট চার্চ ঘুরে দেখেন। হাল্কা গোলাপি সালোয়ার কামিজ, ওড়নায় সাধারণ ভারতীয় নারীর মতোই লাগছিল নিকিকে৷
শিখ শরণার্থী বাবার মেয়ে নিকির আদি বাড়ি পাঞ্জাবে। পঞ্জাবের শিখ পরিবারের মেয়ে নিকি হ্যালি চাঁদনি চকের গুরুদোয়ারাতেও যান। এটি দিল্লির বিখ্যাত সিস গঞ্জ গুরুদোয়ারা। শিখ সম্প্রদায়ের রীতি মেনে ওই গুরুদোয়ারায় চাপাটিও বানান তিনি। বহু মানুষকে প্রসাদ বিতরণ করা হয়। সঙ্গে ছিলেন ভারতের মার্কিন রাষ্ট্রদূত কেনেথ জাস্টার। সেন্ট্রাল ব্যাপটিস্ট চার্চও পরিদর্শন করেন তিনি।

ভারত ও আমেরিকার সম্পর্ক আরও দৃঢ় করতে নয়াদিল্লিতে এসেছেন রাষ্ট্রসংঘে আমেরিকার রাষ্ট্রদূত ভারতীয় বংশোদ্ভূত নিকি হ্যালি। এদিন তিনি এনএসজি প্রসঙ্গে ভারতকে আমেরিকার সমর্থন করার কথা বলেন৷ পরমাণু অস্ত্র তৈরি করতে প্রয়োজনীয় কাঁচামাল, যন্ত্রপাতি রপ্তানির নিয়ন্ত্রক দেশগুলি নিয়ে গঠিত এনএসজি।

Advertisement
---