হুমকির মধ্যেই আমেরিকার সঙ্গে যৌথ মহড়ায় সিওল

সিওল: যৌথ সামরিক মহড়া শুরু করতে চলেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং দক্ষিণ কোরিয়া। সামনের মাসেই পয়লা এপ্রিল থেকে এই মহড়া শুরু হবে বলে জানিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রক৷ মঙ্গলবার এক সাংবাদিক সম্মেলন করে সিওলের প্রশাসনিক আধিকারিকরা৷ তবে এই ঘোষণার পর এখনও পর্যন্ত কোনও প্রতিক্রিয়া দেয়নি উত্তর কোরিয়া৷

এদিকে, পিয়ংইয়ং-এর ওপর চাপ জারি রাখতে রাখতে চাইছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। শীতকালীন অলিম্পিক উপলক্ষে কোরীয় উপদ্বীপে সামরিক মহড়া স্থগিত করায় দুই কোরিয়ার সম্পর্কে বরফ গলতে শুরু করে। এই পরিস্থিতিতেই আবারও সিওল-ওয়াশিংটন যৌথ সামরিক মহড়া শুরুর ঘোষণা করা হল৷ এক বিবৃতিতে

পেন্টাগন জানিয়েছে, পয়লা এপ্রিল থেকে শুরু হতে চলা যৌথ সামরিক মহড়া মে মাসের শেষ পর্যন্ত চলবে। মহড়ার বিষয়টি রাষ্ট্রসঙ্ঘকে অবহিত করা হয়েছে বলেও জানানো হয়। যৌথ এই সামরিক মহড়া পূর্ব পরিকল্পিত এবং প্রতি বছরই চলে বলে দাবি করেছে সিওল৷ বিশেষ কাউকে বার্তা দেওয়া এই মহড়ার উদ্দেশ্য নয় বলেও জানানো হয়েছে বিবৃতিতে৷

- Advertisement -

দক্ষিণ কোরীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের মুখপাত্র চই হিয়ান শু বলেন, আগামী পয়লা এপ্রিল থেকে নিয়মিত মহড়ার অংশ হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়া বার্ষিক সামরিক মহড়া শুরু করছে৷ অলিম্পিক উপলক্ষে যৌথ সামরিক মহড়া কিছুটা দেরিতে শুরু করা হচ্ছে৷

ইইউ-এর বিদেশ বিষয়ক প্রধান ফেদেরিকা মোঘেরিনি বলেন, ‘পরমাণু নিরস্ত্রীকরণে উত্তর কোরিয়ার ঘোষণাকে স্বাগত জানাই। দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জে ইন ও উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের বৈঠকের মধ্যে দিয়ে দুই কোরিয়া একটি শান্তিপূর্ণ সমাধানে পৌঁছাবে বলে আশা করছি। কোরীয় উপদ্বীপের সংকট সমাধানে আমরা কূটনীতিক পর্যায়ের আলোচনাকে স্বাগত জানাই।’

এদিকে, কোরীয় উপদ্বীপে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ নিয়ে আলোচনায় ফিনল্যান্ডে রয়েছে দুই কোরিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি দল। তাদের মধ্যে আলোচনায় ট্রাম্প-কিম সম্ভাব্য বৈঠকের বিষয়টি গুরুত্ব পেতে পারে।

Advertisement
-----