‘সরকার তো গয়ি, হাম হার রহে হ্যায়’, প্রচার সেরে বলেছিলেন বাজপেয়ী

নয়াদিল্লি: ২০০৪ সালে মেয়াদ শেষের আগেই সরকার ভেঙে দিয়েছিলেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ী৷ বেরিয়ে পড়েছিলেন নির্বাচনী প্রচারে৷ নিজের লোকসভা কেন্দ্র লখনউ থেকে মধ্যরাতে প্রচার সেরে ফিরে আসার পর বুঝতে পেরেছিলেন এবার দিল্লির সাউথ ব্লকে ফেরা হচ্ছে না তাঁর৷ ঘনিষ্ঠ সহযোগী শিব কুমার পারেখকে বলেছিলেন, ‘‘সরকার তো গয়ি, হাম হার রহে হ্যায়৷’’ বাজপেয়ীর ভবিষ্যতবাণী মিলে গিয়েছিল৷ ২০০৪ সালের ১৩ মে ফলাফল ঘোষণার পর পরাজয় স্বীকার করে নেন বাজপেয়ী৷

আজ তিনি নেই৷ তাঁর প্রয়াণের পর একেক জন মানুষের স্মৃতিচারণায় বারবার ফিরে আসছেন তিনি৷ পাঁচ দশকের ঘনিষ্ঠ সহযোগী শিব কুমার পারেখ ২০০৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের অনেক কথাই তুলে ধরেন৷ জানান, সময়ের আগে লোকসভা নির্বাচন করতে রাজি হননি অটলবিহারী বাজপেয়ী৷

- Advertisement -

কিন্তু দল তাঁকে বাধ্য করে সরকার ভেঙে লোকসভা নির্বাচনে যেতে৷ এটাই যে তাঁর শেষ নির্বাচন এটা বুঝতে পেরেছিলেন বাজপেয়ী৷ এটাও বুঝতে পেরেছিলেন দল আর ক্ষমতায় ফিরছে না৷ সেই সঙ্গে বাজপেয়ী জমানায় বিজেপির পরিচালন পদ্ধতির সঙ্গে বর্তমানে দল যেভাবে চালিত হচ্ছে তার তুলনা টানেন৷ জানান, আগে দলের সঙ্গে কর্মীদের একটা সম্বনয় ছিল৷ এখন সেটার অভাব আছে৷

এক সর্বভারতীয় মিডিয়াকে দেওয়া সাক্ষাতকারে শিব কুমার বলেন, ‘‘২০০৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি যে হারতে চলেছে তা বুঝতে পেরেছিলেন অটলবিহারী বাজপেয়ী৷ তাই লোকসভা নির্বাচন এগিয়ে নিয়ে আসার ঝুঁকি তিনি নিতে চাননি৷ কিন্তু দল তাঁকে বুঝিয়ে রাজি করে৷’’ তাঁর আরও সংযোজন, ২০০৪ লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির হেরেছে দুটি কারণে৷ প্রথমত, ইন্ডিয়া সাইনিং স্লোগান মানুষ গ্রহণ করেনি৷ দ্বিতীয়ত, লোকসভা নির্বাচন এগিয়ে নিয়ে আসার সিদ্ধান্ত৷

বর্তমানে দেশের ১৯টি রাজ্যে ক্ষমতায় বিজেপি৷ কেন্দ্রে তো বটেই৷ কিন্তু এটা সম্ভব হয়েছে বাজপেয়ীর অক্লান্ত পরিশ্রমের জন্য৷ শিব কুমার জানান, ভিত যদি মজবুত হয় তাহলে নির্মাণও মজবুত হয়৷ বাজপেয়ী দলের ভিত মজবুত করে দিয়ে গিয়েছিলেন৷ তারই জেরে কেন্দ্র ও রাজ্যে রাজ্যে ক্ষমতায় বিজেপি৷

বর্তমানে দল পরিচালনা পদ্ধতি নিয়ে তাঁকে প্রশ্ন করা হয়৷ জানতে চাওয়া হয় বাজপেয়ীর দেখানো পথেই কি চলছে দল? শিব কুমারের উত্তর, বাজপেয়ীর পথে চলা মানে তাঁর মতো করে বাঁচা৷ আশা করব দল তাঁর পথ অনুকরণ করবে৷ তবে তিনি জানান, এখন দলের কার্যকর্তাদের মধ্যে সম্বনয়ের অভাব রয়েছে৷ বাজপেয়ী জমানায় এটা ছিল না৷ তিনি সবাইকে সম্মান দিতেন৷

বাজপেয়ী জমানার অন্যতম বিতর্কিত অধ্যায় গুজরাত সংঘর্ষ৷ যে ঘটনার জন্য আজও বিজেপিকে প্রতি পদে বিরোধীরা নাস্তানুবাদ করতে ছাড়ে না৷ ২০০২ সালে গোধরা কাণ্ডের জেরে তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর উপর ক্ষুব্ধ হয়েছিলেন বাজপেয়ী৷ সেই প্রসঙ্গ উঠতেই শিবকুমারের কাছে জানতে চাওয়া হয় গুজরাত সংঘর্ষের পর নরেন্দ্র মোদীকে কী সত্যিই সরে যেতে বলেছিলেন? জবাবে শিবকুমার শুধু জানান, বাজপেয়ী চেয়েছিলেন মোদী রাজধর্ম পালন করুক৷

Advertisement ---
---
-----