ব্রাহ্মণকে আমিষ খাবার পরিবেশন করিয়ে বিপাকে জেট এয়ারওয়েজ

নয়াদিল্লি: এয়ারলাইন্স সংস্থা জেট এয়ারওয়েজকে আর্থিক ক্ষতিপূরণের নির্দেশ ক্রেতা সুরক্ষা আদালতের৷ নিরামিশাষী যাত্রীকে আমিষ খাবার পরিবেশ করার অভিযোগ উঠেছিল জেট এয়ারওয়েজের বিরুদ্ধে৷ এরপরই এয়ারলাইন্স সংস্থার বিরুদ্ধে মামলা ঠুকে দেন রাজকোটের বাসিন্দা ভানুপ্রসাদ জানি৷ যার পরিপ্রেক্ষিতে এই নির্দেশ ক্রেতা সুরক্ষা আদালতের৷

মামলাকারী ভানুপ্রসাদ জানান, তিনি জীবনে ডিম পর্যন্ত খাননি৷ তাসত্ত্বেও তিনি নিরামিশ মিল অর্ডার করলে তাঁকে আমিষ খাবার দেওয়া হয়৷ ঘটনাটি দু’বছর পুরানো৷ ২০১৬ সালের ২০ অগস্ট জেট এয়ারওয়েজের বিমানে তিনি চেন্নাই থেকে মুম্বইয়ের বাড়ি ফিরছিলেন৷ বিমানে ভানুপ্রসাদ এশিয়ান ভেজিটারিয়ন মিল অর্ডার করেন৷ কিন্তু অভিযোগ, তাঁকে দেওয়া হয় আমিষ খাবার৷ বাধ্য হয়ে কিছুটা খান তিনি৷ সেই খাবার খেয়ে অসুস্থ বোধ করেন ভানুপ্রসাদ৷ এমনকী বমিও করেন৷ প্রমাণ হিসাবে আমিষ খাবারের ছবি ও ভিডিও করে রাখেন৷ পরবর্তীকালে মামলার কাজে লাগে সেই ছবি৷

ফাইল ছবি

ভানুপ্রসাদ বিমান সংস্থার বিরুদ্ধে ৭.২৫ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণের দাবিতে ক্রেতা সুরক্ষা আদালতে মামলা ঠোকেন৷ এক সর্বভারতীয় মিডিয়াকে জানান, সেটা চিকেন না মটন ছিল তাঁর জানা নেই৷ কারণ তিনি জীবনে ডিম পর্যন্ত মুখে তোলেননি৷ ফলে তাঁর পক্ষে বোঝা অসম্ভব সেটা চিকেন না মটন ছিল৷ এদিকে ভানুর অভিযোগ উড়িয়ে বিমান সংস্থা জানায়, তিনি প্রথমে এশিয়ান ভেজিটেরিয়ন মিল অর্ডার করেছিলেন৷ কিন্তু পরে সেটা বাতিল করে আমিষ খাবারের অর্ডার দেন৷ যখন খাবার দেওয়া হয় তখন প্যাকেটের উপর ননভেজ লেখা ছিল৷ সেটা দেখেও তিনি প্যাকেট খোলেন৷ তাছাড়া ওই ছবি দেখে বোঝা গিয়েছে তিনি খাবার মুখেও তোলেননি৷

- Advertisement -

যদিও আদালত বিমান সংস্থার দাবি খারিজ করে দেয়৷ সেই সঙ্গে জেট এয়ারওয়েজকে ৬৫ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণের নির্দেশ দেয়৷ ৫০ হাজার টাকা ভুল খাবার পরিবেশনের জন্য৷ ১০ হাজার টাকা মানসিকভাবে হেনস্থা এবং পাঁচ হাজার টাকা আইনি খরচের জন্য৷

Advertisement
---