অস্পৃশ্যতা দূর করতে উদ্যোগী হল বিশ্বহিন্দু পরিষদ

নয়াদিল্লি: ঐক্যবদ্ধ হতে দলিতদের পাশে রাখতে উদ্যোগ নিল বিশ্ব হিন্দু পরিষদ৷ একইসঙ্গে দলিত এবং মুসলিমদের গাঁটছড়া ভাঙতে নয়া কৌশল নিল গেরুয়া শিবির৷ অস্পৃশ্যতার বিরুদ্ধে এবার প্রচারাভিযান শুরু করল বিশ্ব হিন্দু পরিষদ৷

পড়ুন: প্রবল চাপে পিছু হঠে সংসদে ক্ষমাপ্রার্থী অনন্ত হেগড়ে

বিশ্ব হিন্দু পরিষদ ভারতের একটি চরম ডানপন্থী হিন্দুত্ববাদী রাজনৈতিক দল৷ হিন্দুদের মধ্যে একতা এনে সমাজকে শক্তিশালী করে তুলতে সোচ্চার হয় এই বিশ্ব হিন্দু পরিষদ৷ কিন্তু এবার তাদের গলাতেই এবার উল্টোসুর৷ হিন্দুদের ঐক্যবদ্ধ করে অস্পৃশ্যতার বিরুদ্ধে সরব হল তারা৷ এই প্রচারাভিযানের মূল স্লোগান, ‘এক মন্দির, এক হুয়া, এক শ্মশান/ তাভি বানেগা ভারত মহান’৷

পড়ুন: লোকসভায় পেশ তিন তালাক বিল

বিশ্ব হিন্দু পরিষদের এই স্লোগানের অর্থ, ভারত তখনই মহান হবে, যখন ভারতের এই বিপুল জনসংখ্যা একই নিয়মে চলবে৷ অর্থাৎ সকলে তাদের নিজের মনষ্কামনা পূরণ করতে একই মন্দিরে প্রার্থনা করতে যাবেন, একই কুয়ো থেকে জল খাবেন এবং তাদের অন্ত্যেষ্টিও হবে একই সমাধিস্থলে৷ অর্থাৎ জাতি-ধর্ম-বর্ণ কোনও ভেদাভেদ থাকবেনা এই দেশে৷

সম্প্রতি কর্ণাটকের উড়ুপিতে একটি তিনদিন ব্যাপী সম্মেলনের আয়োজন করা হয়৷ বিশ্ব হিন্দু পরিষদের আয়োজিত এই সম্মেলন উপস্থিত ছিলেন রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ প্রধান মোহন ভগবত৷ এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বিশ্ব হিন্দু পরিষদের ইন্টারন্যাশানাল ওয়ার্কিং প্রেসিডেন্ট প্রবীন তোগাড়িয়া৷ সেই সম্মলনেই স্থির হয় এই প্রচারাভিযানের৷ দলিত এবং মুসলিমদের ঐক্যবদ্ধ করতে একেবারে আদাজল খেয়ে মাঠে ময়দানে নেমেছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ৷

বিশ্ব হিন্দু পরিষদের পশ্চিমবঙ্গ, অসম, ওডিশ্যা, সিকিম এবং আন্দামানের ইন চার্জ সচিন্দ্রনাথ সিংহ জানিয়েছেন, গেরুয়া শিবিরের প্রতিটি নেতা নেত্রী তাদের পারিবারিক অনুষ্ঠানে দলিতদের আমন্ত্রন করবে৷ শুধু তাই নয়৷ দলিতদের বাড়ির যেকোনও অনুষ্ঠানেও সামিল হবেন এবার তারা৷ বিএইচপির এই পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছেন ঘনশ্যাম শাহ৷