‘যারা গোমাতাদের মারছে, তাদের প্রকাশ্যে কেটে ফেলা উচিৎ’

নয়াদিল্লি: হেট স্পিচ বা ঘৃণামূলক বক্তব্যের অভিযোগ দায়ের হল মধ্যপ্রদেশের বিশ্ব হিন্দু পরিষদ নেত্রী সাধ্বী সরস্বতীর বিরুদ্ধে। গোহত্যা আর লাভ-জিহাদ নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন তিনি। এরপরই তাঁর বিরুদ্ধে মামলা রুজু করে পুলিশ।

যারা গোহত্যা করছে আর যারা ‘লাভ-জিহাদি’, তাদের গলা কেটে নেওয়ার বার্তা দেন এই নেত্রী। তাঁর বিরুদ্ধে ভারতী দণ্ডবিধির 295 (A), 153 ও 506 ধারায় মামলা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাতের মামলাও। পাশাপাশি, উস্কানি, দাঙ্গামূলক অপরাধের মত মামলাও হয়েছে।

মধ্যপ্রদেশের মধুর গ্রামের ঘটনা। গত শুক্রবার বাদিয়াদকা গ্রামে ‘বিরাট হিন্দু কনভেনশন’ নামে একটি সম্মেলন ছিল। সেখানে গিয়ে তিনি বলেন, প্রত্যেকে যেন তাদের বোনদের হাতে তলোয়ার তুলে দেয়, যাতে কেউ লাভ-জিহাদ করার চেষ্টা করলে তার গলা কেটে দিতে পারে। তিনি আরও বলেন, ‘কেরলে গোমাতাদের মেরে বিফ পার্টি করা হয়েছে। এদের ভারতে বেঁচে থাকার কোনও অধিকার নেই।’

- Advertisement -

এরপরই তিনি বলেন, ‘আমি যেটা বলব তা হয়ত অনেকের খারাপ লগতে পারে। তবে আপনারা তো গোরুকে মা হিসেবে মনে করেন। আপনাদের মা’কে যদি গুণ্ডারা বিরক্ত করত আপনারা কি করতেন? কেরলে প্রকাশ্যে গোরুকে কাটা হয়েছে। তাই যারা গোরু কাটছে, তাদের প্রকাশ্যে কেটে ফেলা উচিৎ।’

এটাই প্রথম,বার নয়। এর আগেও এমন মন্তব্য করেছেন সাধ্বী সরস্বতী। গত বছর তিনি বলেন, ‘বিফ খাওয়া মানে মায়ের মাংস খাওয়ার সমান। যারা এই কাজ করছে তাদের প্রকাশ্যে ফাঁসিতে ঝোলানো উচিৎ। তাহলে আর কেউ বিফ খাওয়ার সাহস দেখাবে না।’

Advertisement ---
---
-----