শহীদ জওয়ানদের পরিবারকে ট্রফি জয়ের অর্থদান বিদর্ভের

নাগপুর: ঘরোয়া ক্রিকেটে নিজেদের দুর্দান্ত পারফরম্যান্সের ধারাবাহিকতা বজায় রাখল বিদর্ভ। টানা দ্বিতীয়বার রঞ্জি জয়ের পর ইরানি ট্রফিতেও নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব বজায় রাখল তারা। পাশাপাশি মুম্বই ও কর্ণাটকের পর তৃতীয় দল হিসেবে টানা দ্বিতীয়বার ইরানি ট্রফি জয়ের নজির গড়ল বিদর্ভ। আর জয়ের পর চ্যাম্পিয়নশিপের সমস্ত অর্থ পুলওয়ামায় শহিদ জওয়ানদের পরিবারের হাতে তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেন বিদর্ভ দলনায়ক ফৈজ ফজল।

অবশিষ্ট ভারত একাদশের ২৮০ রানের টার্গেট নিয়ে খেলতে নেমে শনিবার লক্ষ্যমাত্রা থেকে ১১ রান দূরে দাঁড়িয়েই ম্যাচ শেষ করার সিদ্ধান্ত নেন দুই দলের অধিনায়ক। কিন্তু প্রথম ইনিংসে এগিয়ে থাকার সুবাদে খেতাব ওঠে বিদর্ভের হাতে। মরশুমের সর্বোচ্চ রানসংগ্রাহক ওয়াসিম জাফরকে ছাড়া বিদর্ভের এই জয় চূড়ান্ত দলগত সাফল্যের পরিচয়। আজিঙ্কা রাহানে, হনুমা বিহারী, ময়াঙ্ক আগরওয়ালের মত ক্রিকেটারদের নিয়ে গড়া অবশিষ্ট ভারত একাদশের বিরুদ্ধে তাদের এই জয় যথেষ্ট প্রশংসার দাবি রাখে।

দুই ইনিংসেই হনুমা বিহারীর দুর্দান্ত শতরান জয় এনে দিতে পারেনি অবশিষ্ট ভারত একাদশকে। বিহারীর ১১৪ রানের পাশাপাশি ময়াঙ্কের ৯৫ রান প্রথম ইনিংসে ৩৩০ রান তুলতে সাহায্য করে অবশিষ্ট ভারত একাদশকে। প্রত্যুত্তরে অক্ষয় কারনেওয়ারের শতরান, সঞ্জয় রঘুনাথ ও অক্ষয় ওয়াদেকারের অর্ধশতরান প্রথম ইনিংসে ৯৫ রানের গুরুত্বপূর্ণ লিড এনে দেয় বিদর্ভকে। সেই লিডই শেষ অবধি নির্ণায়ক হয়ে দাঁড়াল খেতাব জয়ের পথে।

- Advertisement -

এরপর দ্বিতীয় ইনিংসে বিহারীর অপরাজিত ১৮০ রানে ভর করে ম্যাচ জয়ের জন্য ঝাঁপায় অবশিষ্ট ভারত একাদশ। রাহানের ব্যাট থেকেও দ্বিতীয় ইনিংসে আসে গুরুত্বপূর্ণ ৮৭ রান। তিন উইকেটে ৩৭৪ রান তুলে ডিক্লেয়ার ঘোষণা করায় ম্যাচ জয়ের জন্য বিদর্ভের লক্ষ্যমাত্রা দাঁড়ায় ২৮০। অধিনায়ক ফজল শূন্য রানে আউট হলেও প্রথম সারির বাকি ব্যাটসম্যানদের দৌলতে একসময় ম্যাচ জয়ের খুব কাছে পৌঁছে যায় বিদর্ভ। ৫ উইকেটে ২৬৯ রান তোলার পর দুই অধিনায়ক হাত মিলিয়ে নিলে জয় পায় বিদর্ভ।

প্রথম ইনিংসে এগিয়ে থাকার সুবাদে টানা দ্বিতীয়বার ইরানি ট্রফি জতে নেয় বিদর্ভ। ম্যাচের সেরা বিদর্ভের হয়ে প্রথম ইনিংসে শতরানকারী অক্ষয় কারনেওয়ার। ম্যাচ জয়ের পর অধিনায়ক ফৈজ ফজল জানান, ‘দল হিসাবে আমরা ম্যাচ জয়ের অর্থ পুলওয়ামায় সন্ত্রাসবাদী হামলায় শহিদ পরিবারের হাতে তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। দল হিসেবে এবং বিদর্ভ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে এই জয় শহিদ জওয়ানদের পরিবারকেই উৎসর্গ করছি।’