সিডনি: ব্র্যাডম্যানের দেশে ঐতিহাসিক টেস্ট সিরিজ জয় অতীত। মুড বদলে কোহলি অ্যান্ড কোম্পানি ঢুকে পড়েছে ওয়ান ডে ক্রিকেটের আবহে। হাতে মাত্র মাস চারেকের মত সময়। তারপরেই ইংল্যান্ড-ওয়েলসের মাটিতে বেজে যাবে বিশ্বকাপের দামামা। সেই লক্ষ্যেই টেস্ট সিরিজ হারের পর ব্যাকফুটে থাকা অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে শনিবার ওয়ান ডে সিরিজে অভিযান শুরু করছে কোহলিব্রিগেড।

সিরিজ জয় তো রয়েইছে। তবে বিশ্বকাপের প্রস্তুতি হিসেবে এই সিরিজে টিম কম্বিনেশনে চূড়ান্ত রূপরেখা টানতে চাইছেন দলনায়ক বিরাট। যদিও ‘চ্যাট-শো’ কান্ডে বিরাটের সেই পরিকল্পনায় প্রাথমিক ধাক্কাটা দিয়ে গিয়েছেন হার্দিক পান্ডিয়া-লোকেশ রাহুল। জনপ্রিয় চ্যাট-শো ‘কফি উইথ করণ’-এ গিয়ে মহিলাদের নিয়ে আপত্তিজনক মন্তব্য করায় সিডনি ওয়ান ডে থেকে দুই ক্রিকেটারকে ইতিমধ্যেই ছেঁটে ফেলেছে বোর্ড। দুই ক্রিকেটারকে নিয়ে বোর্ডের গঠিত তদন্ত কমিটির রিপোর্ট না আসা অবধি সিরিজের বাকি ম্যাচগুলিতে পান্ডিয়া-রাহুলের খেলার ব্যাপারে কোনও নিশ্চয়তা পাওয়া যাচ্ছে না।

স্বভাবতই পান্ডিয়ার মত একজন ইউটিলিটি অলরাউন্ডারকে শেষ মুহূর্তে না পাওয়ায় দলের থিঙ্ক ট্যাঙ্ককে ভাবতে হচ্ছে নতুন করে। তবে পান্ডিয়াকে না পাওয়ার বিষয়ে মোটেই চিন্তান্বিত হতে চান না বিরাট। বরং পান্ডিয়ার বদলি হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ অলরাউন্ডারের জায়গা পূরণ করার জন্য যে তাঁর দলে জাদেজা রয়েছে, ম্যাচের আগে সাংবাদিক সম্মেলনে জানিয়ে দিলেন কোহলি। পাশাপাশি চ্যাট-শোয়ে পান্ডিয়া এবং রাহুলের করা মন্তব্য যে কোনওমতেই তিনি সমর্থন করেন না, সেবিষয়ে তাঁর মতামত স্পষ্ট করে দিয়েছেন বিরাট।

অর্থাৎ পান্ডিয়া-রাহুলের অভাব প্রথম ওয়ান ডে-তে টিম কম্বিনেশনে কোনওরকম প্রভাব ফেলবে না। সেকথা উল্লেখ করে তিন পেসার এবং দুই স্পিনারে হাঁটার কথা ভাবছেন অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টেস্ট সিরিজ জয়ী প্রথম ভারত অধিনায়ক। এসসিজি-র পিচে হাল্কা ঘাসের কথা মাথায় রেখে ভুবনেশ্বর কুমারের সঙ্গে মহম্মদ শামি এবং খলিল আহমেদকে জুড়ে দিতে চাইছেন কোহলি। দুই স্পিনার কুলদীপ এবং জাদেজা।

ওপেনিংয়ে রোহিত-ধাওয়ানের পর তিন নম্বরে অধিনায়ক স্বয়ং। দলের মিডল অর্ডারের দায়িত্ব থাকছে অম্বাতি রায়ডু, কেদার যাদব এবং মহেন্দ্র সিং ধোনির উপর। এশিয়া কাপ পরবর্তী সময়ে দলে সুযোগ পেয়েই চার নম্বরে নিজেকে প্রমাণ করেছেন রায়ডু। এই সময়কালে একটি শতরান ও তিনটি অর্ধশতরান সহ ১১ ম্যাচ থেকে ৩৯২ রান এসেছে হায়দরাবাদের এই ব্যাটসম্যানের থেকে।

তবে ২০১৮ রানের খরা কাটিয়ে ধোনির ব্যাটে রান চাইছে গোটা ভারতীয় দল। গত বছর ২০টি ওয়ান ডে থেকে মাত্র ২৭৫ এসেছিল মাহির ব্যাট থেকে। শতরান তো দূরে থাক, ২০১৮ মাহির ব্যাট থেকে একটিও অর্ধশরান দেখেনি ক্রিকেট অনুরাগীরা। তাছাড়া অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে ওয়ান ডে পরিসংখ্যানও বিশেষ সুখের নয় টিম ইন্ডিয়ার। ১৯৮৫ ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়নশিপ এবং ২০০৮ সিবি সিরিজ ছাড়া অজিদের মাটিতে ওয়ান ডে সিরিজ থেকে ভারতের প্রাপ্তির ভাঁড়ার শূন্য। যার মধ্যে ধোনির নেতৃত্বে ২০১৬ মরশুমে ৪-১ ব্যবধানে হারের জ্বালা তো রয়েইছে।

সবমিলিয়ে বিশ্বকাপের প্রস্তুতি হিসেবে টেস্ট সিরিজ জয়ের রেশ ধরে ওয়ান ডে সিরিজেও বাজিমাৎ করার লক্ষ্যে কোহলিরা। অন্যদিকে টেস্ট সিরিজে হারের ধাক্কা কাটিয়ে কোহলিদের বিরুদ্ধে ওয়ান ডে সিরিজে ঘুরে দাঁড়াতে মরিয়া ফিঞ্চরা। সেই লক্ষ্যে ম্যাচের আগেরদিন তাদের চূড়ান্ত একাদশ ঘোষণা করল ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। একমাত্র স্পিনার হিসেবে সিডনি ওয়ান ডে-তে অজি দলে জায়গা পেয়েছেন ন্যাথন লায়ন।

উল্লেখযোগ্য ভাবে ২০১০ পর ফের ওয়ান ডে জার্সিতে দেখা যাবে পেসার পিটার সিডলকে। প্রথমবার ওয়ান ডে ফরম্যাটে ওপেন করতে দেখা যাবে উইকেটকিপার অ্যালেক্স ক্যারেকে। চমকপ্রদভাবে ৯০’র দশকে অ্যালান বর্ডারের দলের জার্সিতে এই সিরিজে দেখা যাবে ফিঞ্চদের। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার তরফে এই জার্সিকে ‘রেট্রো জার্সি’ আখ্যা দেওয়া হয়েছে।

প্রথম ওয়ান ডে’র জন্য ঘোষিত অস্ট্রেলিয়া একাদশ:

অ্যারন ফিঞ্চ (অধিনায়ক), অ্যালেক্স ক্যারে (উইকেটরক্ষক), উসমান খোয়াজা, শন মার্শ, পিটার হ্যান্ডসকম্ব, মার্কাস স্টোইনিস, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, ন্যাথন লায়ন, পিটার সিডল, ঝাই রিচার্ডসন, জেসন বেহেনড্রফ।

--
----
--