কোহলিকে টিপস, অস্ট্রেলিয়া সফরে এই দুজনকে ওপেনিংয়ে চান সেহওয়াগ

নয়াদিল্লি: তিনি যা বলেন, সেটাই এমন মুখোরোচক করে বলেন যে তা মুহূর্তেই ভাইরাল৷ এবার বিরাটকে দেওয়া তাঁর টিপস ভাইরালের পথে এক পা এক পা করে এগোচ্ছে৷ ঠিক কী টিপস দিলেন ‘নবাব অফ নজফগড়’৷

বিরাটকে সোজাসুজি না বললেও অস্ট্রলিয়া সফরে ভারতীয় দলের জন্য দুই ওপেনার বেছে দিলেন সেহওয়াগ৷ তাঁর পছন্দ ঝুঁকেছে লোকেশ রাহুল ও পৃথ্বী শ’র দিকে৷

নতুন ওপেনিং পার্টনারদের পছন্দ না হওয়াও কারণ নেই৷ ক্রিকেট মহলের অনেকেই বলছেন অস্ট্রেলিয়ার পিচে বল যেখান কাঁধ ছুঁয়ে যাবে, সেখানে শুরুটা একটু আক্রমণাত্মক হলে ক্ষতি কি!

আর লোকেশ রাহুলের মধ্যে আক্রমণ ও ধৈর্য্য, দুইই রয়েছে৷ দুয়ের ভারসাম্য দেখাতে পারলেও নতুন ওপেনিং পার্টনারশিপ ফল দিতে পারে৷ লোকেশের পার্টনার পৃথ্বী টেস্টে কেরিয়ার শুরু করেছেনই আক্রমণাত্মক ঢঙে৷ যেখানে মারার বল পেলে মারো, এটাই তার ব্যাটিং স্ট্র্যাটেজি৷ ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে রাজকোটে পৃথ্বীর অভিষেক ইনিংস দেখে অনেকেই ইতিমধ্যেই তাঁর ব্যাটিংয়ে সেহওয়াগের ছায়া দেখছেন৷

সেহওয়াগ নিজে কী বলছেন৷ প্রাক্তন ভারতীয় ওপেনারের মত, ‘অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে শুরুটা আক্রমণাত্মক হওয়ায়ই ভালো৷ আক্রমণাত্মক ব্যাটিং শুরুতেই কাজটা অনেক সহজ করে দিতে পারে৷ তাই ওপেনিংয়ে রাহুলের সঙ্গে জুটি বাঁধুক পৃথ্বী৷’

আর রোহিত? ভারতীয় ক্রিকেটে যিনি এখন ‘পরশ পাথর’, যাতেই হাত রাখছেন, সোনা ফলছে! সেই রোহিতকে নিয়েও স্বপ্ন দেখছেন সেহওয়াগ৷ ‘অবশ্যই টেস্ট সিরিজে মিডল অর্ডারে বড় সম্পদ হতে পারে রোহিতের ব্যাটিং৷ ওর ঝুলিতে ওয়ান ডে’তে তিনটে ডবল সেঞ্চুরি৷ অজিদের ডেরায় ওকে বাইরে রাখাটা কিন্তু মারাত্মক ভুল হবে’৷

কোহলি এসব ভুল করেই থাকেন৷ ঠিক যেমনটা দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে প্রথম টেস্টে সফল ভুবিকে বসিয়ে দিলেন দ্বিতীয় টেস্টে৷ পরে যুক্তি ছিল পিচ দেখে মনে হয় ইশান্তই সেরা চয়েজ৷ সেই ভুবি ফিরলেন সিরিজের শেষ ও ফাইনাল টেস্টে৷ জো’বার্গে প্রথম ইনিংসে নিলেন ৩ উইকেট৷ কোহলির ‘টিম পরিবর্তন-পরিবর্তন’ খেলার মাঝে সিরিজ পাঁচ আঙুলের ফাঁক দিয়ে গলে দিয়েছে সিরিজ৷ এবার কি ভুল করার আগে শুধরে নেবেন ভিকে৷ সেইজন্যই কী বিরাটকে ঘুরিয়ে টিপস সেহওয়াগের!

কোহলিকে সেহওয়াগ টিপস দেওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়াতেও এই দুইজনকে ওপেনিংয়ে দেখার আবদার জুড়ে দিল ভারতীয় ক্রিকেটভক্তরা৷

একনজরে পরিসংখ্যান-
পৃথ্বী শ- ওপেনার হিসেবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে অভিষেক৷ আক্রমণাত্মক ব্যাটিং, তিন ইনিংসে সংগ্রহ ২৩৭ রান৷ রয়েছে একটি সেঞ্চুরি ও একটি অর্ধশতরান৷

লোকেশ রাহুল– টেস্ট অভিষেক হয়েছিল অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে৷ চার বছর আগে সিডনিতে টেস্টের প্রথম শতরান৷ প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়াকে ভালভাবে চেনেন রাহুল৷ ওপেনিংয়ে শেষ পাঁচ ইনিংস- ৩৭,১৪৯,০,৪,৩৩*৷

ভারত বনাম অস্ট্রেলিয়ার চার ম্যাচের টেস্ট সিরিজ শুরু ৬ ডিসেম্বর থেকে৷

---- -----