ইফতারে রাহুল-প্রণবকে এক টেবিলে দেখে উত্তর খুঁজছেন প্রদেশ নেতারা

দেবযানী সরকার, কলকাতা: কথা ভুলে যাবে, ছবি মনে থাকবে। নাগপুরে প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি ও কংগ্রেস নেতা প্রণব মুখোপাধ্যায়ের যোগদানের আগে এভাবেই সতর্ক করেছিলেন তাঁর কন্যা শমিষ্ঠা মুখোপাধ্যায়। প্রণব কন্যার সতর্কতার লাইনকেই কার্যত নিজেদের সুর বানিয়েছিল কংগ্রেস। দিল্লির নেতারা তো বটেই বাংলার কংগ্রেস নেতারাও প্রণব মুখোপাধ্যায়ের আরএসএসের মঞ্চে ওঠা নিয়ে কম সমালোচনা করেননি৷ কিন্তু বুধবার কংগ্রেসের ইফতার পার্টিতে রাহুল গান্ধী-প্রণব মুখোপাধ্যায়কে এক ফ্রেমে দেখার পর কয়েক কদম পিছিয়ে গিয়েছেন বাংলায় প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির সমালোচকরা৷

প্রদেশ কংগ্রসের যে নেতারা প্রণব মুখোপাধ্যায়ের আরএসএস সফর নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন বা বাঁকা মন্তব্য করেছিলেন তাঁরাই এখন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীর সঙ্গে তাঁকে ইফতার পার্টিতে দেখে অস্বস্তিতে পড়েছেন৷ দুটি ঘটনাকে পাশাপাশি রেখে ব্যাখ্যা খুঁজছেন প্রদেশ নেতারা৷ আগের কড়া মন্তব্য থেকে অনেকেরই সুর এখন নরম৷ সমালোচনা ছেড়ে শুধু উত্তর খুঁজছেন প্রদেশ নেতারা৷

যেমন প্রদেশ কংগ্রেসের সিনিয়ার নেতা ওমপ্রকাশ মিশ্র প্রণব কন্যার বক্তব্যকে সমর্থন করে বলেছিলেন, ‘‘শর্মিষ্ঠা যা বলেছেন একদম ঠিক কথাই বলেছেন৷ কংগ্রেসের আদর্শের সঙ্গে যাঁরা যুক্ত তাঁরা আরএসএসের গুনকীর্তণ করতে পারে না৷ প্রণববাবু করবেন সেটা বলছি না৷ কিন্তু সেখানে যাওয়া মানে আরএসএসের মতাদর্শকে গুরুত্ব দেওয়া৷” কিন্তু ইফতার পার্টির পর প্রণববাবুর সম্পর্কে কড়া মন্তব্য এড়িয়ে গিয়েছেন তিনি৷ বরং দলের মুখপাত্র রণদীপ সিং সুরজওয়ালার বক্তব্যকে উল্লেখ করে তিনি প্রণববাবুকে সমর্থন করেছেন৷

- Advertisement -

ওমপ্রকাশ মিশ্রের কথায়, “কংগ্রেসের বক্তব্য মানে রণদীপ সিং সুরজওয়ালার বক্তব্য৷ প্রণব মুখোপাধ্যায়ের ভাষণের পর উনি সাংবাদিকদের বলেছিলেন, সংঙ্ঘ পরিবারকে সত্যের আয়না দেখালেন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি৷ ওটাই দলের আসল বক্তব্য৷ আর কংগ্রেসের ইফতার পার্টিতে ওকে ডাকা হয়েছিল তাই উনি গিয়েছিলেন৷ সেখানে হামিদ আনসারি, মনমোহন সিং, প্রাক্তণ রাষ্ট্রপতিও গিয়েছিলেন৷ সৌহার্দ্যপূর্ণভাবে কথা হয়েছে৷ রাহুল গান্ধী তো ওকে রেসপেক্ট করেন সেটা বোঝাই যাচ্ছে৷ এক টেবিলে ওরা বসেছেন৷ এটা আলাদা করে দেখার কী আছে৷

ওমপ্রকাশ মিশ্রের বক্তব্য, আমার দুটো প্রশ্ন আছে৷ এক, উনি কেন গিয়েছেন সেটা এখনও উনি বলেননি৷ আর দুই আরএসএসের প্রতিষ্ঠাতা হেডগেওয়ারকে ভারতমাতার মহান সন্তান বলেছিলেন তিনি৷ সেটা কেন বলেছিলেন? এই দুটো প্রশ্নের উত্তর জানার সবাই উৎসুক হয়ে রয়েছে৷ কিন্তু সেটা তো ওনার কাছে সরাসরি জানতে চাওয়া যায় না৷ তবে উনি জানালে সবার ভালো লাগবে৷

শুভঙ্কর সরকারের বক্তব্য, একমাত্র কংগ্রেস দলেই আভ্যন্তরীন গণতন্ত্র রয়েছে৷ এখানে একে অন্যের সমালোচনা করতে পারে কিন্তু অন্য দলে এটা করতে কেউ সাহস পাবেনা৷ দেশের স্বার্থে কংগ্রেস বহুবার তাদের নীতি-আদর্শ বদলেছে৷ যে আরএসএস কংগ্রেস বিরোধী দেশের কথা বলেছিল তাদেরই আজকে কংগ্রেসের লোকেদের শরনাপন্ন হতে হল৷ প্রণব মুখোপাধ্যায় মুখোপাধ্যায় কংগ্রেসের ভাবধারার সঙ্গে যুক্ত৷ আমি মঞ্চে যাচ্ছি মানে আরএসএসের মতকে সমর্থন করছি তা নয়৷ উনি তো জাতীয়তাবাদ, সহিষ্ণুতার কথা বলে এসেছেন৷ এখন দেখার উনি যে আয়না দেখিয়ে এসেছেন সে পথে না চললে আরএসএসের লাভ হয়নি বুঝব৷ লোক দেখানোর জন্য নিয়ে গিয়েছে বলে মনে হবে৷

প্রণব মুখোপাধ্যায়ের আরএসএস মঞ্চে যাওয়া নিয়ে আগেই অধীররঞ্জন চৌধুরীর প্রতিক্রিয়া ছিল, “আমি খবরটা শুনে খুবই অবাক হয়েছি৷ আমার প্রশ্ন, আগে আরএসএসকে নিয়ে উনি যা মন্তব্য করেছেন সেসব কী ভুল ছিল?” ইফতার পার্টির পরে অবশ্য অধীর প্রণব মুখোপাধ্যায়কে নিয়ে প্রকাশ্যে কোনও মন্তব্য করেননি৷ তবে আরএসএস সফরের সময় প্রাক্তণ রাষ্ট্রপতি সম্পর্কে প্রদেশ নেতারা ফ্রন্টফুটে খেললেও দলের হাইকমান্ডের কূটনীতিতে তাঁরা খানিকটা বেসামাল হয়ে পড়েছেন বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল৷

Advertisement
---