তৃণমূলের রবীন্দ্র-নজরুলকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়তে হাজির বিজেপির বঙ্কিমচন্দ্র

দেবময় ঘোষ, কলকাতা: তৃণমূলের রবীন্দ্র-নজরুলকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিতে ময়দানে বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়কে হাজির করতে চলেছে বিজেপি৷ রাজনীতির ময়দানে কবিগুরু আর বিদ্রোহী কবি যেন শাসকদলের একচ্ছত্র অধিকারে৷ বিজেপির মনে হয়েছে, ‘বন্দেমাতরমে’র স্রোষ্টা যেন বাংলার মাটিতে চির-অবহেলিত৷ সেই কারণেই, বঙ্কিমকে স্মরণের কর্মসূচী বানাতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব৷

বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ জুনের ২৭ এবং ২৮ তারিখে বাংলায় আসছেন৷ আপাতত যা ঠিক, বঙ্কিমচন্দ্রের উপর বিশেষ সেমিনারে অংশ নেবেন তিনি৷ বিজেপির অন্দরে যা আলোচনা, কবিগুরু বিশ্ব বন্দিত৷ বিদ্রোহী কবি হিন্দু-মুসলমান একতার প্রতীক৷ কিন্তু তৃণমুল কংগ্রেস তাঁদের নিয়ে রাজনৈতিক প্রচারে কখনও পিছিয়ে থাকেনি৷ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এমন ভাষণ খুঁজে পাওয়া কঠিন, সেখানে তিনি রবীন্দ্রনাথ-নজরুলকে উদ্ধৃত করেননি৷ তৃণমূলের ছোট-বড় নেতারা কথায় কথায় বলেন, বাংলার মাটি দূর্জয় ঘাঁটি, রবীন্দ্রনাথ-নজরুলের দেশে বিজেপি দাঙ্গা বাধাতে চেষ্টা করলে ফল খারাপ হবে৷ সেক্ষেত্রে রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এবং কাজি নজরুল ইসলামকে ব্যবহার করার কোনও সুযোগই পায়নি বিজেপি৷

কিন্তু ‘আনন্দমঠ’ – এর রচয়িতা বঙ্কিম যেন তৃণমূল কংগ্রেসের কাছে এখনও অধরা৷ সেই ‘সন্যাসী বিদ্রোহে’র পটভূমিকায় বাংলায় জাতীতাবাদি আন্দোলনের রূপরেখা বঙ্কিমের হাতেই তৈরি, বাংলার মানুষকে মনে করিয়ে দিতে চেষ্টা করবে বিজেপি৷ বোঝানো হবে, বঙ্কিমচর্চায় পিছিয়ে বাংলা৷ তৃণমূল সরকার বঙ্কিমের জাতীয়তাবাদি ভাবধারা, স্বাধীনতা আন্দোলনে তাঁর ভূমিকাকে অবহেলা করেছে৷

- Advertisement -

বিজেপির অন্দরে আলোচিত হয়েছে, বিশ্বকবি ভারতীয় জনতা পার্টিতেও সমানভাবে সমাদ্রিত৷ বঙ্কিমের ‘বন্দেমাতরম’কে গান হিসেবে গড়ে তোলেন রবীন্দ্রনাথ৷ ওই গানের প্রথম দুটি ছত্র জাতীয় সঙ্গীত হিসেবে গ্রহণ করা হয়েছে কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকে৷ কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যেভাবে বিশ্বকবিকে তৃণমূলের প্রচারের হাতিয়ার বানিয়েছে, তা মেনে নেওয়া যাচ্ছে না৷

এক বিজেপি নেতার কথায়, ‘‘ পাড়ায় পাড়ায় রবীন্দ্রনাথ, নজরুলের মুর্তি৷ আর নীচে করে লেখা আছে তৃণমূলের কাউন্সিলারের নাম৷ পার্ক থেকে কলতলা, সব জায়গায় রবীন্দ্র-নজরুল৷ কবিদের কী সম্মাল জানানো হচ্ছে বুঝতে পারলেন? বিজেপি যদি বঙ্কিম-সেমিনার করে, তাঁকে উপযুক্ত সম্মান জানাতেই তা করা হবে৷ রাজনৈতিক ফায়দা লুঠতে নয়৷’’

রবি কবির সম্পর্কে বিজেপির মতামত, ‘‘রবীন্দ্রনাথ হিন্দুত্বকে ব্যাখ্যা করেছেন৷ বলেছেন, দেশের মুসলমান এবং খ্রিষ্টান আদতে হিন্দু৷ পরবর্তীকালে তাঁরা ধর্ম পরিবর্তন করেছিলেন৷’’ তবে নজরুল ইসলাম সম্পর্কে তাদের মতামত জানা যায়নি৷

Advertisement
-----