সৌমেন শীল: তারকেশ্বর এরিয়া ডেভেলপমেন্ট কমিটি থেকে সরাতে হবে ফিরহাদ হাকিমকে। মুসলিম সম্প্রদায়ের ব্যক্তিকে কিছুতেই হিন্দু ধর্মস্থানের মাথায় রাখা চলবে না। এই দাবিতে আন্দোলনে নামতে চলেছে পশ্চিমবঙ্গ শিবসেনা।

আরও পড়ুন- তারকেশ্বর মন্দির উন্নয়ন বোর্ড থেকে ফিরহাদকে হটানোর হুমকি স্বামীর

তারকেশ্বর এরিয়া ডেভেলপমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে রাজ্যের পুর এবং নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম তথা ববিকে নিযুক্ত করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ওই কমিটির অধীনেই রয়েছে হিন্দু ধর্মের বিশিষ্ট তীর্থক্ষেত্র তারকেশ্বর মন্দির। অহিন্দু ফিরহাদকে ওই মন্দির পরিচালনা সংক্রান্ত কমিটির মাথায় বসানো নিয়ে শুরু হয়েছিল বিতর্ক।

আরও পড়ুন- তারকেশ্বর মন্দির নিয়ে স্বামীর হুমকির জবাব দিলেন ফিরহাদ

এক বছর পরে সেই বিতর্ক এখন প্রায় অস্তমিত। কিন্তু হিন্দু ভাবাবেগপকে হাতিয়ার করে সেই বিতর্ক ফের জাগিয়ে তুলতে চাইছে এই রাজ্যের বাল ঠাকরের অনুগামীরা। শ্রাবণ মাস জুড়ে তারকেশ্বরে অনেক ভক্ত সমাগম হয়। সেই রেশ কাটলে অর্থাৎ শ্রাবণ মাসের পরেই শুরু হবে আন্দোলন। ওই তারকেশ্বর এরিয়া ডেভেলপমেন্ট কমিটির শীর্ষপদ থেকে ফিরহাদ হাকিমকে না সরানো পর্যন্ত্র মন্দিরের সামনে অনশন চালিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করেছে শিবসেনার পশ্চিমবঙ্গ শাখা। এমনই জানা গিয়েছে শিবসেনা সূত্রে।

আরও পড়ুন- তারকেশ্বরের উন্নয়নে কাজ শুরু করলেন ববি হাকিম

এই বিষয়ে শিবসেনার এই রাজ্যের সম্পাদক প্রদীপ ঘোষ বলেছেন, “তারকেশ্বর মন্দির সংক্রান্ত কোনও কমিটিতেই অহিন্দু ব্যক্তির অস্তিত্ব মেনে নেওয়া যায় না। সেই কারণেই ফিরহাদ হাকিমকে তারকেশ্বর এরিয়া ডেভেলপমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যানের পদ থেকে সরানোর দাবিতে আমরা আন্দোলন করব।” একই সঙ্গে তিনি আরও বলেছেন, “কোনও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হোক সেটা আমরা চাইছি না। তাই শ্রাবণ মাসের পরে আমরা যা করার করব।”

অনুগামীদের সঙ্গে প্রদীপ ঘোষ(গেরুয়া পোশাক)

শ্রাবণ মাসে বিপুল ভক্তদের মাঝে আন্দোলন শুরু করলে সমগ্র বিষয়টি আয়ত্বের বাইরে চলে যেতে পারে বলে জানিয়েছেন প্রদীপ ঘোষ। একই সঙ্গে তিনি আরও জানিয়েছেন যে এই শ্রাবণ মাসের দু’টি রবিবারে তারকেশ্বরে আগত সকল ভক্তদের উপলক্ষে বিশেষ শিবির করবে শিবসেনা। সেখানে পূণ্যার্থীদের জন্য নানাবিধ সেবা এবং আহারাদির ব্যবস্থা করা হবে। শুধু তাই নয় সকল পূণ্যার্থীদের চিকিৎসার ব্যবস্থাও থাকছে শিবসেনার শিবিরে।

আরও পড়ুন- বাংলায় কংগ্রেসের ‘দোসর’ শিবসেনা

----
--