পাক গণতন্ত্রে ‘জঙ্গি অনুপ্রবেশ’ ও ইমরান-নওয়াজের ভাগ্য

ইসলামাবাদ:  বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়নের ট্রফি হাতে তুলেছিলেন৷ পাকিস্তান পাগল হয়ে গিয়েছিল৷ ১৯৯২ সালের সেই ঐতিহাসিক মুহূর্তের পর অমূল পরিবর্তন হয়েছে ইমরান খানের৷ ক্রিকেটের কিং খান এখন রাজনীতির লোক৷ একাধিক বিয়ে করেছেন৷ বিতর্ক হয়েছে৷ তবুও সেই ক্রিকেটার থেকে রাজনীতিক হয়ে যাওয়া ইমরানকেই বেছে নেবে পাকিস্তান ? উত্তর বন্দি হল ভোট বাক্সে৷

পাকিস্তান নির্বাচন কমিশন জানাচ্ছে, বুধবার রাতেই শুরু হয়েছে গণনা৷ ইসলামাবাদ, লাহোর, করাচি, পেশোয়ার, কোয়েটা সহ দেশটির সর্বত্র জারি হয়েছে কড়া সতর্কতা৷ তবুও নির্বাচন চলাকালীন বালোচিস্তানে নাশকতায় রক্ত ঝরল৷ এই ধরণের হামলা প্রত্যাশিত ছিল৷

২৭২টি জাতীয় আইনসভা এবং ছটি প্রাদেশিক আইনসভায় কারা ক্ষমতায় আসছে সেটাই দেখার৷ নির্বাচনে সেনার মদতেই ভোটে জিততে চলেছেন ইমরান খান৷ পাকিস্তান তেহরিক ই ইনসাফ দলের নেতাকে ঘিরে এমনই অভিযোগ উঠেছে৷ যদিও নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করার অভিযোগ উড়িয়েছে সেনা৷ প্রতিদ্বন্দ্বী তথা ক্ষমতাসীন পিএমএল(এন) ও অপর দল পিপিপির মধ্যে কাদের বেছে নিয়েছেন পাক জনগণ তাও লক্ষণীয়৷

- Advertisement -

নির্বাচনে বিশেষ ভূমিকা নিয়ে হাজির হয়েছে মুম্বই হামলার মাস্টার মাইন্ড হাফিজ সইদ৷ তার দলের আসন প্রাপ্তির দিকে নজর গোটা দুনিয়ার৷ মোস্ট ওয়ান্টেড জঙ্গি নেতা এদিন ভোট দিয়ে পাকিস্তানের গণতন্ত্রে ‘জঙ্গি অনুপ্রবেশ’ পথটি পরিষ্কার করে দিয়েছে৷

Advertisement
---