সাতসকালেই আরব সাগর তীরে গেরুয়া সুনামির শঙ্কা

গান্ধীনগর: সিংহভাগ সংবাদমাধ্যমের বুথফেরত সমীক্ষা গুজরাত ও হিমাচলপ্রদেশে এগিয়ে রেখেছে বিজেপিকে৷ সমীক্ষার এই ইঙ্গিতের সঙ্গে বাস্তবের কতখানি মিল রয়েছে, তা অবশ্য জানা যাবে আর কয়েকঘণ্টা পরই৷

গুজরাত ও হিমাচল প্রদেশের ভোট গণনার LIVE UPDATE

২০১৪ সালে এই গুজরাত মডেলকে সামনে রেখেই সর্বভারতীয় রাজনীতিতে উত্থান ঘটেছিল নরেন্দ্র দামোদর দাস মোদীর৷ তারপর তাঁকে সামনে রেখেই একের পর এক রাজ্য দখল করেছে বিজেপি৷ সেই ধারা অক্ষুন্ন থাকবে নাকি রাহুল গান্ধীর নেতৃত্বে কংগ্রেস ফের ঘুরে দাঁড়াতে চলেছে, আপাতত এই জল্পনাতেই মশগুল রাজনীতিকরা৷

আরও পড়ুন- মোদী-রাহুলের দঙ্গলে মূল নজর দুই শিবিরের আসন প্রাপ্তি

আজ, সোমবার কড়া নিরাপত্তায় গুজরাত ও হিমাচলপ্রদেশে শুরু হতে চলেছে ভোট গণনা৷ সকাল ৮টা থেকে শুরু হবে গণনা৷ কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই স্পষ্ট হয়ে যাবে যুযুধান দু’পক্ষের মধ্যে কারা শেষ হাসি হাসলেন৷ স্বভাবতই সংশ্লিষ্ট দুটি রাজ্যের ফলাফলের দিকে অধীর আগ্রহে তাকিয়ে রাজনৈতিক মহল৷

আরও পড়ুন- দিদিমণির রক্তচক্ষু উড়িয়ে ফের বিরোধীদের হুমকি অনুব্রতর

কমিশন সূত্রের খবর, গুজরাতের ৩৭টি কেন্দ্রে ভোটগণনা হবে। ইতিমধ্যে সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রগুলিকে মুড়ে ফেলা হয়েছে নিঃশ্ছিদ্র নিরাপত্তায়৷ তবে ফলাফল যাই হোক, আপাতত তা নিয়েই উত্তেজনার পারদ ফুটছে আমেদাবাদের চায়ের দোকান থেকে রান্নাঘর- সর্বত্রই৷ আমআদমির আলোচনায় উঠে আসছে জিএসটি থেকে নোটবন্দি সব প্রসঙ্গই৷ গুজরাতে ২২ বছরের বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে উন্নয়ন প্রসঙ্গে মানুষের ক্ষোভকে রাহুল গান্ধীরা ভোট বাক্স পর্যন্ত টেনে নিয়ে যেতে কতখানি সক্ষম হলেন নাকি মোদী জনপ্রিয়তাকে হাতিয়ার করেই ফের বিজেপি বাজিমাত করল, তাও স্পষ্ট হবে আর কয়েকঘণ্টা পর৷

আরও পড়ুন- বাংলায় দুর্নীতি মুক্ত গেরুয়ার লক্ষ্যে জানুয়ারিতে সভা বিজেপির

তাৎপর্যপূর্ণভাবে ফলপ্রকাশের আগেই ভোটযন্ত্র অর্থাৎ ইভিএমে কারচুপির অভিযোগে সরব হয়েছে পতিদার সম্প্রদায়ের নেতা হার্দিক প্যাটেল৷ বিষয়টি নিয়ে আদালতে যাওয়ার হুমকি দিয়েছেন তিনি৷

গুজরাটের রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, শেষ ২২বছরের ইতিহাসে এমন টানটানা উত্তেজনা আগে দেখেনি গুজরাত৷ ওই মহলের মতে, হার্দিক প্যাটেল, অল্পেশ ঠাকোর এবং জিগ্নেশ মেওয়ানির মতো তিন নেতাকে একত্রিত করে এবারের নির্বাচনে বিজেপিকে ‘টাফ’ লড়াইয়ের মুখে ফেলেছেন রাহুল গান্ধী৷ যদিও সিংহভাগ সংবাদ মাধ্যমের বুথ ফেরত সমীক্ষায় এগিয়ে রাখা হয়েছে বিজেপিকে৷ তবে টানা ছ’বারের জন্য গুজরাতে বিজেপি সরকার গড়তে পারবে কি না, লাখ টাকার এই প্রশ্নের উত্তর পেতে আরও কয়েক ঘণ্টা অপেক্ষা করতেই হবে৷

----
-----