বাংলাদেশি হলে পাকিস্তানি নয় কেন? অসম ইস্যুতে প্রশ্ন মমতার

নয়াদিল্লি: নাগরিক পঞ্জিকরণ নিয়ে ফের কেন্দ্রকে একহাত নিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দিল্লিতে একের পর এক বৈঠক সারছেন মমতা। তাঁর দাবি, বাংলাদেশিদের ‘অনুপ্রবেশকারী’ বলা উচিৎ হচ্ছে না।

অমিত শাহ তাঁর সাংবাদিক বৈঠকে বারবার ‘ঘুসপেটি’ শব্দটা ব্যবহার করছেন। আর তাতে আপত্তি রয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গ শুধুই সীমান্ত ভাগ করে তাই নয়, আমাদের ভাষা, সংস্কৃতিও এক। যদি এভাবে চলতে থাকে তাহলে সিভিল ওয়ার হবে।’

অবৈধ প্রবেশ প্রসঙ্গে মমতার মত, এটা শুধুই বাংলাদেশের ইস্যু নয়। তিনি বলেন, ‘আমাদের মনে রাখতে হবে যে দেশভাগের পর পাকিস্তান থেকেও বহু মানুষ ভারতে এসেছেন। নেপালও আমাদের প্রতিবেশী।’ তৃণমূলনেত্রী আরও বলেন, ‘বিজেপিকে যারাই ভোট দেবে, তাদের নামই তালিকায় স্থান পাবে, বাকিদের নাম মুছে দেওয়া হবে।’ বাংলাদেশিদের নাম করে তাদের বের করে দেওয়া হবে বলে উল্লেখ করেছেন মমতা।

মঙ্গলবারই দিল্লিতে গিয়ে কনস্টিটিউশন ক্লাবের অনুষ্ঠানে একই ইস্যুতে বিজেপি আক্রমণ করেন মুখ্যমন্ত্রী। বলেন, কে ভারতীয়, তা ঠিক করার অধিকার বিজেপির নেই৷ তাই ভোটের দিকে নজর রেখে একের পর এক দেশ বিরোধী কাজ করে চলেছে মোদী সরকার৷ এনআরসির জন্য দেশে যুদ্ধকালীন পরিস্থিতি সৃষ্টি হবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি৷

এদিন তৃণমূল নেত্রী আরও বলেন, বিজেপি দেশ ভাগের চেষ্টা করছে৷ এইভাবে দেশে গৃহযুদ্ধ বাঁধতে পারে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেন মমতা৷ বিজেপিকে কটাক্ষ করে মমতার বক্তব্য ২০১৯ সালে বিজেপি নিজের ভুল ভোটের বাক্সে দেখতে পাবে৷ আগে তারা দেশ নিয়ে ভাবুক৷ তারপর বাংলা নিয়ে ভাববে৷

----
-----