শুধুমাত্র জেলে যাওয়ার জন্যই কি দেশে ফিরলেন নওয়াজ?

ইসলামাবাদ: দেশে ফিরেই গ্রেফতার৷ জেনশুনে দেশে ফেরার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ ও কন্যা মরিয়ম৷ শুক্রবার গ্রেফতার হয়েই সোজা রাওয়ালপিন্ডির আদিয়ালা জেলে বাবা, মেয়ে৷ কাটালেন রাত৷ পাক সংবাদমাধ্যম সূত্রের খবর, ‘বি’ ক্লাসের সুযোগসুবিধা পেয়েছেন দু’জনেই৷ জেলে আর কত রাত কাটাতে হবে জানা নেই নওয়াজ, মরিয়মের৷ ঠিক নির্বাচনের আগেই গ্রেফতারির পরোয়া না করে কেন দেশে ফিরলেন তাঁরা? উঠছে প্রশ্ন৷

তিনটি দুর্নীতি মামলায় অভিযুক্ত নওয়াজ, মারিয়াম৷ তাদের গ্রেফাতারি এখনও বড়সড় রহস্যে ঘেরা৷ সামনে আসছে বেশ কয়েকটি তথ্য-

- Advertisement -

১. ২৫ জুলাই পাকিস্তানে সাধারণ নির্বাচন৷ এই নির্বাচনেই ঘুরতে পারে নওয়াজের রাজনৈতিক মোড়৷ আবার হতে পারে উলোটপুরান৷ হারানোর কিছু নেই বলেই কি পাকিস্তানে ফেরা?
২. পিএমএল-এম দলের সুপ্রিমো নওয়াজ, নেতা ছাড়া দল নিয়ন্ত্রণে প্রায় দিশাহারা বরিষ্ঠ নেতারা৷ দলের হাল ধরতেই হয়ত দেশে ফিরলেন নওয়াজ৷
৩. নওয়াজের গ্রেফতারি আসন্ন পাক নির্বাচনে ইতিবাচক প্রমাণিত হতে পারে, ২০০৮ সালে একইভাবে বেনজির ভুট্টো সহানুভুতি ভোট পেয়েছিলেন৷
৪. প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী দাবি করেছেন, তাঁর বিরুদ্ধে আনা সমস্ত অভিযোগ দুর্বল এবং ভিত্তিহীন৷ যা আদালতে অবশ্যই প্রমাণিত হবে বলে মনে করছেন নওয়াজ ও তাঁর দল৷
৫. ‘দুর্নীতির আতুঁর ঘর লন্ডন’ বলে নওয়াজের বিকুদ্ধে অভিযোগ ওঠে৷ তার থেকে নিস্তার পেতেই হয় দেশে ফিরলেন প্রাক্তন পাক প্রধানমন্ত্রী৷
৬. পাক সেনা আধিকারিকদের জবাব দিতেই হয়ত দেশে ফেরা

লন্ডনে অসুস্থ স্ত্রীকে ফেলেই পাকিস্তানে গ্রেফতার হয়েছেন নওয়াজ, মরিয়ম৷ বড় কিছু সম্ভাবনার আশায় হয়ত এত বড় পদক্ষেপ৷ তবে, পাকিস্তানের ইতিহাসে নওয়াজ শরিফ বড়সড় অধ্যায়৷ সেই অধ্যায়ের গতিবিধির দিকে নজর রাখছে বিরোধী দল গুলিও৷ কোথাও যেন কাঁটাও হতে পারেন শরিফ, নির্বাচনের আগে তাই নওয়াজের গ্রেফতার হওয়া পাকিস্তানের রাজনীতিকে আরও বেশি প্রাসঙ্গিক করছে৷

Advertisement ---
---
-----