বাংলায় শীত বলতে গেলে এক মাস থাকে: সায়নী

ছবি-মিতুল দাস

এই প্রজন্মের অভিনেত্রী। একটু অন্য ধারার চিন্তাধারা বহন করেন তিনি। এক কথায় স্বাধীনচেতা। ‘একলা চলো ’ ছবিতে সিঙ্গল মাদার। ‘চৌকাঠ’-এ চৌকস  সাংবাদিক। অথবা ‘মায়ের বিয়ে’ ছবির এমন একটি মেয়ে যে মায়ের খেয়াল রাখে। এরকম বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করে দর্শকদের সন্তুষ্ট করেছেন অভিনেত্রী সায়নী ঘোষকলকাতা 24*7-এর প্রতিনিধি রাকেশ নস্কর-এর সঙ্গে ছোট্ট আড্ডায় জানালেন ঠাণ্ডার মরশুমের টুকি টাকি।

প্রশ্ন- ঠাণ্ডা মরশুম তোমায় কী অনুভূতি দেয়? 
সায়নী ঘোষ-  শীতের মরশুম আমি সেই সময় উপভোগ করি যখন ঠিক শীতের মরশুম আসে… বা যখন চলে যায়। মাঝখানের সময়টা খুব একটা পছন্দের নয়। কারণ প্রচণ্ড অলস লাগে। কাজ করা যায় না। শীত আমায় অলস করে দেয়। তবু শীতকে আমি প্রচণ্ড ভালোবাসি। আমার মনে হয় এটাই ভালো সময়, সব থেকে ভালো জামা কাপড় পরা বা খাবার খাওয়ার উপযুক্ত সময়। এবং কম মেক আপ করে বেরোনো যায়। মিলিয়ে মিশিয়ে অন্যান্য মরশুমের থেকে শীত আমার সেরা লাগে।

প্রশ্ন- খাবার ইচ্ছে কি একটু বেড়ে যায়? 
সায়নী ঘোষ- হ্যাঁ… বিশেষ করে ডিসেম্বর মাসের কথা বলবো…সময়টা পুরো পার্টি করার। যেহেতু আমাদের নানান রকমের আমন্ত্রণ থাকে। তাই প্রচুর পার্টি, খাওয়া দাওয়া…থেকে আমি কোনও দিনই নিজেকে সংযত রাখতে পারিনা। কারণ বাংলায় শীত বলতে গেলে এক মাস থাকে। সেই সময়টা চুটিয়ে মজা করতে চাই। আমি নিজে খুব একটা মিষ্টি ভালোবাসি না। তবে শীতে গরম গরম মালপোয়া, ক্ষীর, নলেন গুড়ের মিষ্টি আমায় টানে। আমি একজন খাদ্যরসিক বাঙালি।

- Advertisement -

প্রশ্ন- বইমেলার বিষয় কী বলবে? শীতের অন্যতম আকর্ষণ…
সায়নী ঘোষ-  বইমেলার বিষয় খুব এক্সাইটেড। আমি নিজেও  পড়তে ভালোবাসি। বইমেলা একটি ঐতিহ্যবাহী উৎসব। যেরকম নন্দনে ছবি দেখা, সেরকম বইমেলায় যাওয়া। যেহেতু বই পড়তে ভালোবাসি তাই প্রতিবছর যাই। এইবছরও যাব বলে আশা করছি। শীতের মরশুমে বইমেলা, চিড়িয়াখানা একটা অঙ্গ।

প্রশ্ন- এই সময় কি তোমার বেড়ানোর প্ল্যান থাকে?
সায়নী দত্ত-  তিনটে প্ল্যান আছে।  কশৌল, ক্যালিফোর্নিয়া যাওয়ারও ইচ্ছে আছে যদি বন্ধু বান্ধবরা ফ্রি থাকে। বছরের শেষে বাবা মাকে নিয়ে আন্দামান যেতে হবে। হিমাচল ও আন্দামান ঠিক ঠাক রয়েছে। ক্যালিফোর্নিয়াটা ঠিক হয়নি। 


প্রতিনিধি- রাকেশ নস্কর    

Advertisement
---