অবৈধ সম্পর্কের অভিযোগে মহিলাকে উলঙ্গ করে নির্যাতন

দেবনাথ মাইতি, মেদিনীপুর: অবৈধ সম্পর্কের জেরে পারিবারিক অশান্তি আর তার কারণে বৃহস্পতিবার সকালে এক ব্যক্তির আত্মহত্যা। ঘটনাটি ঘটেছে মেদিনীপুর শহর লাগোয়া খয়েরুলাচকে।

বুধবার বিকেল থেকে নিখোঁজ থাকার পর বৃহস্পতিবার সকালে গলায় দড়ি দিয়ে ঝুলন্ত অবস্থায় সুভাষ ঘোষ (৪২) দেহ উদ্ধার হয়েছিল। এলাকায় এই খবর রটে যাওয়ার পরই বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কিত ওই এলাকারই এক গৃহবধূর ওপর আক্রমণ চালাল মৃতের পরিবার সহ স্থানীয় একদল মহিলা। ওই গৃহবধূকে উলঙ্গ করে বেধড়ক মারধর করে চুল পর্যন্ত কেটে দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন- চিকিৎসক নিগ্রহে প্রশাসনকে ৭২ ঘন্টা সময় সংগঠনের

মৃত সুভাষ ঘোষের দিদি কৃষ্ণা ঘোষ জানিয়েছেন যে ওই গৃহবধূর সঙ্গে অবৈধ সম্পর্কে লিপ্ত থাকার কারণে এর পরিবারে প্রায় এক বছর ধরে পারিবারিক অশান্তি চলছিল। এই বিষয়টি এলাকার সকলেই জানেন। যে মহিলার সঙ্গে এই সম্পর্ক ছিল বলে অভিযোগ সেই মহিলার স্বামী বাইরে রাজমিস্ত্রির কাজ করেন। মাস ছয়েকের এক কন্যা সন্তান নিয়ে এখানে বাপের বাড়ীতে একা বাড়িতে থাকেন ওই মহিলা।

আরও পড়ুন- বাসে ব্লেড নিয়ে হামলায় জখম মহিলা যাত্রী

এই সম্পর্ক নিয়ে এলাকায় দুই জনকেই বহুবার বিভিন্ন দিক থেকে সাবধান করা হয়েছিল। সবথেকে বেশি অশান্তির মধ্যে ছিল আত্মঘাতী সুভাষের পরিবার। সেই অশান্তির কারণেই বৃহস্পতিবার সকালে সে আত্মহত্যা করেছে বলে দাবি পরিবারের।

এরপরই পরিবারের লোকজন সহ এলাকার একদল মহিলা ওই সম্পর্কিত মহিলার বাড়িতে হামলা চালায়। মহিলাকে বেধড়ক মারধর করা হয়। মাথার চুল কেটে দেওয়া হয়। উলঙ্গ করে গায়ে বিচুটি পাতা ঘষে পাড়ায় ঘোরানো হয় খানিকটা। মৃতের স্ত্রী সহ এলাকার মহিলারা এই কাণ্ড করেছে বলে জানা গিয়েছে স্থানীয় সূত্রে।

অনেক পরে কোন ভাবে কয়েকজন যুবক আক্রান্ত গৃহবধূকে উদ্ধার করে ভরতি করেছে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তার চিকিৎসা চলছে। স্থানীয় বাসিন্দা সুজয় দাস বলেন, “সুভাষের সঙ্গে ওই মহিলার অবৈধ সম্পর্ক ছিল বলে এলাকার লোকজন জানতেন, সেই সম্পর্ক নিয়ে অশান্তির কারণে আত্মহত্যা সুভাষ করতেই স্থানীয় মহিলারা এই কাণ্ড করেছে। আমি এবং কয়েকজন মিলে কোন ভাবে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভরতি করেছি।”

আরও পড়ুন- সাত শহরে বিশেষ কুম্ভের আয়োজন করছে আরএসএস

ঘটনার পর ওই এলাকায় উত্তেজনা থাকায় সেখানে রওনা দেয় গুড়গুড়িপাল থানার পুলিশ। তবে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত কেউ গ্রেফতার হয়নি এই ঘটনায়।

----
-----