চণ্ডীগড়: এবার প্রধান শিক্ষিকা-ছাত্রের মধ্যে এমন এক সম্পর্কের কথা উঠে এল যা লজ্জায় ফেলে দেবে আপনাকেও৷ পাঞ্জাবের পাটিয়ালায় ঘটেছে এমনই এক চাঞ্চল্যকর ঘটনা৷ একটি সরকারি স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা নিজের স্কুলেরই দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রের সঙ্গে জোর করে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে৷ এই ঘটনা জানাজানি হতেই পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ দায়ের করা হয়, আর তখন থেকেই নিখোঁজ এই প্রিন্সিপাল৷ কোথাও কি কিছুটা নওয়াজুদ্দিনের ‘হারামখোর’ বা হলিউডি ছবি ‘আ টিচার’-এর ছবির কথা মনে পড়ে যাচ্ছে? এরকমই বহু ছবিকে এক করলে যেন ভয়াবহ অন্ধকার এই দিকগুলো প্রকাশ্যে চলে আসে৷ কোথাও থাকে সম্মতির ছোঁয়া, কোথাও শুধুই জোরজবরদস্তি-শক্তির প্রদর্শন৷ এমনই এক ঘটনা লোকচক্ষুর আড়ালে ঘটে গেল পাঞ্জাবের একটি গ্রামে৷

আরও পড়ুন: নিজের নাবালক মেয়েকে দিয়ে নীলছবি বানিয়ে গারদে বাবা

Advertisement

ঘটনাটা ঠিক কি ঘটেছিল?
সূত্রের খবর অনুযায়ী, এই ঘটনা রাজপুরা এলাকার একটি গ্রামের৷ নির্যাতিত ছাত্র পুলিশকে জানিয়েছে, স্কুলের প্রিন্সিপাল একবার তাকে ঘরে ডেকে পাঠায়৷ সেখানেই তাকে একা পেয়ে জোর করে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করতে বাধ্য করে৷ এখানেই শেষ নয়, এর পর প্রায়শই এমন নির্যাতন চলতে থাকত৷ সেই সঙ্গে চলত হুমকি দেওয়ার পালাও৷ যদি সে এই সম্পর্কের কথা কাওকে জানায় তাহলে তার পরিণাম যে ভালো হবে না, সেই কথা যেন বারবার ঘুরে ফিরে মাথার মধ্যে আসত ছাত্রটির৷

আরও পড়ুন: জোর করে আমায় স্যুইটে নিয়ে গিয়ে

ঘটনা প্রকাশ্যে এল কখন?
এভাবেই চলতে থাকার মাঝে একবার ছাত্রটি শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনে অস্বীকার করলে, সেই প্রধান শিক্ষিকা ছাত্রটির নাম স্কুল থেকে কেটে দেয় বলে সূত্রের খবর৷ ফের এই স্কুলে নাম লেখাতে হলে তাকে খাতায়-কলমে পরীক্ষা নয়, দিতে হবে শারীরিক সম্পর্কের পরীক্ষা, এমনই পরিস্থিতির মধ্যে পড়ে যায় ছাত্রটি৷ শেষে আর থাকতে না পেরে ছাত্রটি তার পরিবারকে সব কথা জানায়৷ একথা প্রকাশ্যে আসতে এলাকায় উত্তপ্ত হয়ে ওঠে৷

আরও পড়ুন: জোর করে টেনে এনে ওরা আমাকে বাবা-মার সামনেই ধর্ষণ করল

তদন্তের হাল হকিকত:
পুলিশের সঙ্গে সঙ্গে শিক্ষাবিভাগও সমগ্র বিষয়টি নিয়ে তদন্তে নেমে পড়ে৷ পরিস্থিতি বেগতিক দেখে গা ঢাকা দেয় অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষিকা৷ তার ফোনও সুইচ অফ করে দেয়৷ শিক্ষাবিভাগ থেকে উপযুক্ত তদন্তের আশ্বাস দিলে পরিবারের তরফ থেকে অভিযোগ তুলে নেওয়া হয়৷ তবে এরর পাশাপাশি এও জানিয়ে দেওয়া হয় যে তদন্তে গাফিলতি দেখলে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে৷

----
--