শরীরের খিদেই পুলিশের জালে ফাঁসালো রোমিও রাজকে

স্টাফ রিপোর্টার, আলিপুরদুয়ার: এ এক অদ্ভূত নেশা ছেলের৷ এখান ওখান থেকে ফোন নম্বর যোগাড় করত বাড়ির মেয়ে-বউদের৷ তারপর মিসড কল৷ ওপাশ থেকে রিং ব্যাক হলে ভালো৷ না হলে নিজেই ফোন করত সে৷

কোনও কোনও মিষ্টি গলা যেমন এই ফোন পেয়ে ঝাঁঝালো হয়ে উঠত৷ তেমনই আবার কোনও কোনও মেয়ে সহজেই ফিদা হয়ে যেত এই রোমিওর সঙ্গে কথা বলে৷ প্রথমে ইধার-উধার কা গল্প৷ তারপর প্রেম নিবেদন৷

আরও পড়ুন: বলি ডিভার সঙ্গে সময় কাটিয়ে খুশি যিশু

- Advertisement -

কিছুদিন এভাবে চলার পরই ইনিয়ে বিনিয়ে মেয়েটিকে বোঝাতো এবার শারীরিক সম্পর্ক করতে চায়৷ সবটা পরিকল্পনামাফিক সারা হলেই টাটা বাই বাই জানাত মেয়েটিকে৷

কিন্তু শেষ রক্ষা হল না৷ এক মহিলা পুলিশকর্মীকে ঢাল করে হাতেনাতে তাকে ধরে ফেলল হাসিমারা ফাঁড়ির পুলিশ৷ সিনেমার গল্প থেকে কোনও অংশে কম নয় আলিপুরদুয়ারের শামুকতলার রাজ এক্কার কাহিনী৷ বয়স এখন বাইশের কাছাকাছি৷ এলাকার লোকজন বলছে, এই বয়সেই বিরাট বড় খিলাড়ি হয়ে উঠেছে সে৷ ফোনালাপেই আধা কাজ সেরে ফেলছে৷ এরপর সামনে পেলে বাকিটা৷

আরও পড়ুন: শুভেন্দু-অনুব্রত-দিলীপের রিপোর্ট চাইল কমিশন

গত মার্চ মাসের ১৯ তারিখ হাসিমারা ফাঁড়ি এলাকা থেকে নিখোঁজ হয়ে যান বছর আটচল্লিশের এক গৃহবধূ৷ ঘরে এক সন্তান রয়েছে তাঁর৷ স্বামীর সঙ্গে সম্পর্কও ভাল৷ তা হলে গেল কোথায়! খোঁজ পড়ে যায় চারিদিকে৷ কিন্তু কোনও সন্ধান না পেয়ে পুলিশের দ্বারস্থ হয় পরিবার৷ এরপরই কেসটা হাতে নেন হাসিমারা ফাঁড়ির ওসি কমলেন্দ্র নারায়ণ৷ তদন্তে নেমে এক চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে আসে তাঁর হাতে৷ কারও মিসড কল এসেছিল ওই মহিলার কাছে৷ মোবাইল ট্র্যাক করে জানা যায় শামুকতলার রাজ এক্কা নামে এক যুবকের মোবাইল নম্বর এটি৷

আরও পড়ুন: মৃত্যুর পর বাবাকেও ফ্রিজে রেখে টাকা তোলার মতলবে ছিল ছেলে

এরপরই রাজকে হাতেনাতে ধরতে জম্পেশ একটা প্ল্যানিং করে পুলিশ৷ ফাঁড়িরই এক দক্ষ মহিলা পুলিশ কর্মীর কাঁধে রাজকে ধরার দায়িত্বটা দেওয়া হয়৷ ঠিক যেভাবে রাজ মেয়েদের নিজের জালে জড়াত সেই চালেই বাজিমাত করতে ময়দানে নামে পুলিশ৷ কথার জালে জড়িয়ে আলিপুরদুয়ারে আনা হয় ওই যুবককে৷ আগে থেকেই তৈরি ছিল পুলিশবাহিনীও৷ গন্তব্যে পা রাখতেই হাতকড়া৷ ধরা পড়ে নিজের কৃতকর্মের কথা স্বীকারও করেছে অভিযুক্ত যুবক৷ সে জানিয়েছে, মেয়েদের দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে শারীরিক সম্পর্ক করাটা তার নেশা৷ উদ্ধার হয়েছেন ওই গৃহবধূও৷

আরও পড়ুন: ইঞ্জিনিয়ার হতেই হবে, বাবা-মায়ের চাপে আত্মহত্যার চেষ্টা ছাত্রীর

Advertisement ---
---
-----