অ্যাকোস্টা-ডিকার ডুয়েলের আশায় অধীর আগ্রহে যুবভারতী

কলকাতা: জন্মাষ্টমীর সকাল থেকেই ঘূর্ণাবর্তের বৃষ্টিতে শহরজুড়ে পারদ নেমেছে বেশ খানিকটা। তবে ছুটির দিন হওয়ায় বৃষ্টি মাথায় করে স্কুল-কলেজ কিংবা অফিস যাওয়ার ঝক্কি নেই শহরবাসীর। তাতে কি? আজ যে মরশুমের প্রথম বড় ম্যাচ। রবিবাসরীয় ডার্বি। তাই দম ফেলার ফুরসৎ নেই ফুটবলপ্রিয় বাঙালির।

আরও পড়ুন: বড় ম্যাচ না ডার্বি, এগিয়ে কে?

বড় ম্যাচ মানেই বাঙালির হেঁশেলে ইলিশ কিংবা চিংড়ি। সেই মিথ হয়তো আজ ফিকে হয়েছে। তবুও বড় ম্যাচের সকালে শহরের বাজারে ইলিশ-চিংড়ি অন্যান্য দিনের তুলনায় বাড়তি গুরুত্ব যে পায়, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। বড় ম্যাচের সেই উন্মাদনাও আর সেভাবে চোখে পড়ে না। বরং বাঙালি এখন অনেক বেশি চিন্তিত তুরিনের মাটিতে রোনাল্ডো তাঁর প্রথম গোল পেলেন কিনা তা নিয়ে?

- Advertisement -

আরও পড়ুন: বড় ম্যাচে ইস্টবেঙ্গল ডাগআউটে চমক

হাজার হোক, তবু আজ বড় ম্যাচ। একদিকে টানা নবম বার লিগ জয়ের লক্ষ্যে কর্পোরেট ইস্টবেঙ্গল। অন্যদিকে শতাব্দীপ্রাচীন মোহনবাগান চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের অশ্বমেধের ঘোড়া থামানোর লক্ষ্যে। বিগত কয়েক বছরের তুলনায় সামান্য বদলেছে এবারের বড় ম্যাচের চিত্রটা। তার কারণ হতে পারে লাল-হলুদের ডাগ আউটে সুভাষ ভৌমিকের উপস্থিতি৷ কিংবা বিশ্বকাপারের সাথে হেনরি-ডিকাদের ডুয়েল। তবে কারণটা যাই হোক না কেন টিকিট ঘিরে উন্মাদনা দেখে বয়জ্যেষ্ঠরা অনেকেই ফিরে পাচ্ছেন সত্তরের উন্মাদনা। যারা হয়ত এখন আর বড় ম্যাচ নিয়ে বিশেষ মাথাও ঘামাতেন না।

আরও পড়ুন: টিকিটের চাহিদা বৃদ্ধির জন্য মুখ্যমন্ত্রীকে কৃতিত্ব দিলেন ইস্টবেঙ্গল কর্তা

যাইহোক, সদ্য শেষ হওয়া বিশ্বকাপ খেলে এসেই বড় ম্যাচে নামছেন লাল হলুদের অ্যাকোস্টা। তাই কি বেশ কিছুটা চাপে পড়ে যাবে ধারাবাহিক ভাবে চলতি লিগে ভাল খেলে আসা বাগানের ডিকা-হেনরি জুটি৷ স্টেডিয়ামে ঢোকার মুখে মোহন জনতা কিন্তু ইস্টবেঙ্গলের বিশ্বকাপার স্টপারকে বাড়তি সমীহ করতে নারাজ। বরং তাদের মতে উল্টে চাপে থাকবেন বিশ্বকাপার নিজেই।

আরও পড়ুন: ‘অ্যাকোস্টার জন্যই এগিয়ে থাকবে ইস্টবেঙ্গল’

আর ৭ ম্যাচে ১৬ গোল করা বাগানের আক্রমণভাগ নিয়ে আশাবাদী মোহন জনতা বিশ্বাসী গত ছ’টি ডার্বির মতই এবারেও পরিসংখ্যান যাবে তাদেরই দখলে। স্বভাবতই গত আটবার লিগের ট্রফিটা ছুঁতে না পারলেও ডার্বির পরিসংখ্যান সাহস জোগাচ্ছে মোহন সমর্থকদের। মাঠে ঢোকার মুখে তাদের হুঙ্কারেই পরিষ্কার বিষয়টি।

আরও পড়ুন: বড় ম্যাচে হারের চাকা ঘোরাতে চান সুভাষ

উল্টোদিকে ডিফেন্সে বিশ্বকাপারের উপস্থিতি, তো ডাগ আউটে ভোম্বল দা। যুবভারতীর প্রবেশপথে লাল-হলুদ সমর্থকদের দেখলে যেন মনে হচ্ছে ম্যাচ শুরুর আগেই মোহনবাগানকে এক গোল দিয়ে বসে আছে তারা। পরিসংখ্যানে নিয়ে মাথা ঘামাতে রাজি নন তারা। উপরি পাওনা হিসেবে রবিবার ভিআইপি বক্সে থাকছেন নতুন কোচ। সবমিলিয়ে সাম্প্রতিক পরিসংখ্যানের পাশা পাল্টে বড় ম্যাচে জয়ে ফিরতে পারলে যেন ষোলকলা পূর্ণ হবে ইস্টবেঙ্গল সমর্থকদের। সুভাষের ষ্ট্র্যাটেজি তো রয়েইছে, তবে স্টেডিয়ামে ঢোকার মুখে সমর্থকদের কথায় অ্যাকোস্টাই তাদের বড় ম্যাচের দূত। ভাবখানা এমন, ডার্বি জিতেই নবমবার লিগ জয় নিশ্চিত করতে চায় তারা।

Advertisement
---